সুন্দরবনে বাঘের সঙ্গে লড়াই করে প্রাণে বাঁচলেন

বাংলাদেশ লিড নিউজ

(এশিয়ান জার্নালস ডেস্ক) সুন্দরবনে বাঘের সঙ্গে আধা ঘন্টা লড়াই করে প্রাণে বাচলেন জেলে মাসুম হাওলাদার (৩০)।  গুরুতর আহতাবস্থায় বাড়ি ফেরার পর তাকে শরণখোলা উপজেলা ভর্তি করা হয়েছে।  মাসুম শরণভোলা উপজেলার উত্তর রাজাপুর গ্রামের আ. জলিল হাওলাদারের ছেলে। বুধবার বিকেল ৩টার দিকে সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের ধানসাগর স্টেশনের তাম্বলবুনিয়া এলাকায় বাঘের মুখে পড়েন তিনি। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন দুই সহযোগী মামুন হাওলাদার ও  ভাই জাহিদুল হাওলাদার।

ধানসাগর স্টেশন থেকে পাস-পারমিট নিয়ে সুন্দরবনে বরশি দিয়ে মাছ ধরতে ছোট নৌকায় করে তাম্বলবুনিয়া এলাকায় যায় তারা।  বিকলে ৩টার দিকে বরসীর আধারী সংগ্রহের জন্য জাহিদুল খালে জাল ফেলে মাছ ধরছিলেন।  আর খালের চরে দাঁড়িয়ে ছিলেন মাসুম। হঠাৎ সুন্দরবনের ভেতর থেকে বের হয়ে আসে বাঘটি। হামলা পড়ে মাসুমের ডান পায়ে কাপড় বসায়। মাসুম তখন অন্য পা দিয়ে লাথি মেরে সরিয়ে দেয়। আবার বাঘ তার বাহাত ধরে কেয়া বনের মধ্যে টেনে নিয়ে যেতে থাকলে বাঘের সাথে বাঁচা-মরার লড়াই শুরু হয় মাসুমের। আধা ঘন্টা ধরে লড়াই চলার পর এক পর্যায় তার ভাই জাহিদুলের চিৎকারে কাছাকাছি মাছ ধরতে থাকা জেলেরা ছুঁটে এলে বাঘ মাসুমকে ছেড়ে বনে পালিয়ে যায়। এতে মাসুমের শরীরের বিভিন্ন স্থানে বাঘের নখ ও দাঁতের আঘাতে গুরুতর আহত হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী জেলে হাবিবুর রহমান খলিফা জানান, তারা কাছাকাছি মাছ ধরছিলেন। এসময় ডাক-চিৎকার শুনে ঘটনাস্থলে আসতেই বাঘ মাসুমকে ছেড়ে দিয়ে সুন্দরবনে চলে যায়। পরে তাকে উদ্ধার করে পরিবারের কাছে পৌঁছে দেয়া হয়। শরণখোলা হাসপাতলের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. রিপন নাথ জানান, মাসুমের শরীরের বিভিন্ন স্থানে বাঘের আঘাতের ক্ষত হয়েছে। তবে, তার অবস্থা আশঙ্কামুক্ত। খবর বাংলাদেশ প্রতিদিনের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *