আরেকটি অচলাবস্থার মুখে যুক্তরাষ্ট্র ; শুক্রবারের মধ্যে নতুন বিল পাস না হলে আবারও শাটডাউন

আমেরিকা লিড নিউজ

(ওয়াশিংটন, যুক্তরাষ্ট্র) মার্কিন ইতিহাসের দীর্ঘস্থায়ী অচলাবস্থা শেষে দুই সপ্তাহ না গড়াতেই আরেকটি শাটডাউনের মুখে যুক্তরাষ্ট্র। সীমান্ত নিরাপত্তা নিয়ে সমঝোতায় পৌঁছানো নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের রিপাবলিকান ও ডেমোক্র্যাট আইনপ্রণেতাদের মধ্যে চলমান আলোচনা কোন ধরণের চুক্তি ছাড়াই থমকে গেছে। সোমবারের মধ্যে একটি চুক্তিতে পৌঁছাতে এবং শুক্রবারের মধ্যে সেটি পাস করাতে চাইছিলেন তারা।

যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে রেকর্ড ৩৫ দিনের অচলাবস্থা অবসানে ২৫ জানুয়ারি তিন সপ্তাহের একটি তহবিল অনুমোদন দেয়া হয়। এ তহবিলের মেয়াদ শেষ হচ্ছে শুক্রবার (১৫ ফেব্রুয়ারি)। নতুন কোনো সমঝোতা ছাড়া এ সময়সীমা পার হলে ফের থমকে যাবে সরকারি কার্যক্রম। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিযোগ, ডেমোক্র্যাটরা ফের মার্কিন সরকারের চাকা বন্ধ করতে চায়। খবর বিবিসি ও দ্য ইন্ডিপেনডেন্টের।

যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের দাবিকৃত ৫৭০ কোটি ডলার অর্থবিলই দুই পক্ষের মতভেদের কেন্দ্রে অবস্থান করছে। অভিবাসীদের আটক করার নীতি নিয়ে ডেমোক্রেট ও রিপাবলিকান আইনপ্রণেতাদের মধ্যে বিরোধের জেরে চলমান আলোচনা থমকে যায় বলে রোববার জানিয়েছেন রিপাবলিকান সিনেটর রিচার্ড শেলবি। আলোচনায় রিপাবলিকানদের নেতৃত্ব দিচ্ছেন তিনি।

ডেমোক্রেটরা চান, মার্কিন ইমিগ্রেশন এন্ড কাস্টমস এনফোর্সমেন্টের (আইসিই) আটককেন্দ্রগুলোতে যে পরিমাণ বিছানা আছে তা কমানো হোক। ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও যারা অবস্থান করছে তাদের বদলে যেসব অভিবাসীর বিরুদ্ধে অপরাধের রেকর্ড আছে তাদের আটক করা হোক।

ডেমোক্র্যাটরা চান, আটককেন্দ্রে বিছানার সংখ্যা হবে সাড়ে ১৬ হাজার। এসব শর্তের বিনিময়ে রিপাবলিকানদের সীমান্ত দেয়ালের জন্য কিছু অর্থ ছাড়ের প্রস্তাব দিয়েছে তারা। কিন্তু তা ট্রাম্পের প্রস্তাবিত সীমান্ত দেয়াল নির্মাণে দাবির চেয়ে অনেক কম। সিনেট ও প্রতিনিধি পরিষদের ১৭ ডেমোক্র্যাট মধ্যস্থতাকারী দেয়াল নির্মাণে ১৩০ কোটি থেকে ২০০ কোটি ডলার বরাদ্দের চিন্তা-ভাবনা করছে।

রোববার ফক্স নিউজকে শেলবি বলেছেন, ‘আমরা সেখানে পৌঁছতে পারব বলে মনে হচ্ছে না। চুক্তির সম্ভাবনা ৫০-৫০। অচলাবস্থার অপচ্ছায়া সবসময়ই ঘিরে ছিল।’ ডেমোক্র্যাট নেতারা মধ্যস্থতাকারীদের একটি সমঝোতায় পৌঁছতে বাধা দিচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন ট্রাম্প।

রোববার এক টুইটার বার্তায় তিনি বলেন, ‘ডেমোক্র্যাট দলের সীমান্ত কমিটি চুক্তিতে পৌছাতে পারবে না। তারা যে অর্থ দিতে চাচ্ছে, তা খুবই নগণ্য।’ প্রেসিডেন্ট অভিযোগ তুলে বলেন, ‘এটি ডেমোক্র্যাটদের জন্য খুবই খারাপ একটি সপ্তাহ। সীমান্ত দেয়াল নির্মাণে সমঝোতায় পৌছানোর কোন লক্ষণই নেই তাদের। তারা আবারও সরকারের চাকা অচল করতে চায়।’

‘ট্রাম্প আর প্রেসিডেন্ট হবেন না’: ডেমোক্রেটিক সিনেটর এলিজাবেথ ওয়ারেন (৬৯) আনুষ্ঠানিকভাবে ২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেতে প্রচার শুরু করেছেন। ম্যাসাচুসেটসের লরেন্স শহরে রোববার এক প্রচারণায় তিনি বলেন, ‘২০২০ সাল আমাদের, ডোনাল্ড ট্রাম্প সম্ভবত প্রেসিডেন্ট হতে পারবেন না। এমনকি তিনি স্বাধীন ব্যক্তিও হতে পারবেন না।’

এর আগেও বিভিন্ন কেলেঙ্কারিতে জর্জরিত ট্রাম্পকে দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট না হতে দেয়ার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন ম্যাসাচুসেটসের এ সিনেটর। লরেন্সের নির্বাচনী প্রচারে অর্থনৈতিক অসমতা দূর করার প্রতিশ্রুতি দেন বামপন্থী ওয়ারেন। তার প্রচারাভিযানে প্রায় সাড়ে ৩ সহস্রাধিক সমর্থক উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *