পাক-ভারত উত্তেজনা প্রশমনে ভূমিকা রাখবে তুরস্ক: তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোগান

ইউরোপ

(আঙ্কারা, তুরস্ক) পাকিস্তান-ভারত চলমান উত্তেজনা প্রশমনে ভূমিকা রাখার ইচ্ছে প্রকাশ করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়েপ এরদোগান। দুই দেশের মধ্যকার সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে তিনি পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গেও কথা বলেছেন। তুর্কি সংবাদমাধ্যম দ্য হুররিয়াত ডেইলি নিউজ লিখেছে, ভারতীয় বৈমানিককে ফিরিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়ায় ইমরান খানের প্রশংসা করেছেন এরদোগান।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মিরের পুলওয়ামাতে এক আত্মঘাতী বিস্ফোরণে প্রাণ হারায় দেশটির আধা-সামরিক বাহিনীর অন্তত ৪০ জন সদস্য। এর দায় স্বীকার করে পাকিস্তানভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদ। ২৬ ফেব্রুয়ারি ভারত পাকিস্তানের অভ্যন্তরে বিমান হামলা চালায়। নয়াদিল্লির দাবি, জইশ-ই-মোহাম্মদের ঘাঁটিতে চালানো এ হামলায় ৩০০ জঙ্গি মারা গেছে।

এর জবাবে ২৭ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তান বিমান পাঠায় ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মির সীমান্তে। সেখানে দুই পক্ষের বিমানযুদ্ধের পর পাকিস্তানের হাতে আটক হন ভারতীয় বৈমানিক অভিনন্দন বর্তমান। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ‘উত্তেজনা প্রশমনে সদিচ্ছার প্রতীক’ হিসেবে তাকে মুক্তি দেন গত ১ মার্চ।

গত ২ মার্চ এক নির্বাচনি সভায় দেয়া ভাষণে ভারত-পাকিস্তান উত্তেজনা প্রসঙ্গে নিজের অবস্থান ব্যাখ্যা করেন এরদোগান। তিনি বলেন, ‘আমি পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে গত পরশু কথা বলেছি (২৮ ফেব্রুয়ারি)। ভারত পাকিস্তান উভয় দেশের সঙ্গেই তুরস্কের সম্পর্ক ভালো। উত্তেজনা বৃদ্ধি করা আর আগুনে ঘি ঢালার মতো কাজ করে কারও লাভ হবে না। উত্তেজনা প্রশমনে যে ভূমিকা রাখার সুযোগ আছে, তুরস্ক সে ভূমিকা রাখবে।’

পাকিস্তানি সংবাদপত্র দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন রেডিও পাকিস্তানের বরাতে আরও জানিয়েছে। আটক ভারতীয় বৈমানিককে ফেরত দেয়ায় এরদোগান ইমরান খানের প্রশংসা করেছেন এবং বলেছেন, ‘পাকিস্তানের জন্য আমাদের হৃদয়ে বিশেষ স্থান আছে।’ভারতীয় বৈমানিককে মুক্তি দেয়ায় ইমরান খানের প্রশংসা করেছেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মেও।

উত্তেজনা প্রশমনে সদিচ্ছার স্বীকৃতি স্বরূপ ইমারন খানের এই ভূমিকার প্রশংসা করা হয়েছে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে দেয়া এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে। পুলওয়ামা হামলার পর থেকে যেসব ঘটনা ঘটেছে সেসবের বিষয়ে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করেছেন ইমরান খান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *