ঘূর্ণিঝড় আইডার আঘাতে হাজারের বেশি মৃত্যুর আশঙ্কা

আফ্রিকা

(মাপুতো, মোজাম্বিক) মোজাম্বিকে ঘূর্ণিঝড় আইডার আঘাতে প্রাণহানির সংখ্যা এক হাজার ছাড়িয়ে যেতে পারে। এমন আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ফিলিপ নুইসি। তিনি বলেন, এই ঘূর্ণিঝড়ে ভয়াবহ ক্ষতি হয়েছে। তিনি নিজে বন্যার পানিতে মরদেহ ভেসে থাকতে দেখেছেন।জিম্বাবুয়েতে তাণ্ডব চালানোর পর বৃহস্পতিবার রাতে দেশটিতে আঘাত আনে আইডা। এই ঘূর্ণিঝড়ে মোজাম্বিকের বেইরা শহরের ৯০ শতাংশই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আফ্রিকার উত্তরাঞ্চলীয় তিন দেশ মোজাম্বিক, জিম্বাবুয়ে ও মালাউইতে ঘূর্ণিঝড়টির আঘাতে এখন পর্যন্ত ১৫০ এরও বেশি প্রাণহানির কথা জানা গিয়েছে।

মোজাম্বিকে আনুষ্ঠানিকভাবে ৮৪ জনের মৃত্যুর কথা জানানো হয়েছে। বেইরা পরিদর্শনে গিয়ে প্রেসিডেন্ট বলেন, তিনি বন্যার পানিতে মরদেহ ভেসে থাকতে দেখেছেন। আন্তর্জাতিক ত্রাণ সংস্থা রেডক্রস জানিয়েছে পরিস্থিতি খুবই ভয়বাহ, ৯০ শতাংশ এলাকা ধ্বংস হয়ে গেছে, রাস্তা ধ্বংস হয়ে গেছে। ভয়াবহতার মাত্রা মারাত্মক। ক্ষয়ক্ষতির পুরোপুরি হিসেব মিললে হতাহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে জানিয়েছে রেডক্রস।

গাছ থেকে আটকে পড়াদের উদ্ধার করা হচ্ছে। প্রতিবেশী দেশ জিম্বাবুয়েতে এখন পর্যন্ত ৮০ জনের মৃত্যুর কথা জানা গেছে। এর আগে মালাউইতে আইডার প্রভাবে সৃষ্ট বৃষ্টি ও ঘূর্ণিঝড়ে ১২২ জনের মৃত্যু হয়েছে। ইতোমধ্যে দুর্গতদের সহায়তায় দুযোর্গ ব্যবস্থাপনা তহবিল থেকে ৩ লাখ ৪০ হাজার ডলার সহায়তা প্রদান করা হয়েছে বলেছে জানিয়েছে রেড ক্রস।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *