নেদারল্যান্ডসে যাত্রীবাহী ট্রামে বন্দুক হামলা, নিহত ৩

ইউরোপ

(আমস্টারডাম, নেদারল্যান্ডস) নেদারল্যান্ডসের উত্রেচ শহরে একটি যাত্রীবাহী ট্রামে সন্ত্রাসী হামলা চালিয়েছে এক বন্দুকধারী। সোমবার সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে এ হামলা হয়। এতে ৩ জন নিহত ও বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। এটাকে সন্ত্রাসী হামলা হিসেবে অভিহিত করে দেশটির সন্ত্রাস দমন বিভাগ। পরে অভিযান চালিয়ে বন্দুকধারীকে আটক করে পুলিশ।

এর আগে শনিবার যুক্তরাজ্যের লন্ডনে হিথ্রো বিমানবন্দরের পাশে এক কিশোরের ওপর হামলা চালায় এক সন্ত্রাসী। ‘সব মুসলিমকে হত্যা কর’ বলে চিৎকার করেই ছুরি ও বেসবল ব্যাট নিয়ে হামলা করে সে। এতে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে ১৯ বছরের এক কিশোর। হামলাকারীকে আটক করা হয়েছে। লন্ডন পুলিশ বলছে, উগ্র কট্টর ডানপন্থীদের দ্বারা উদ্বুদ্ধ হয়ে এই হামলা চালানো হয়েছে। এটাকেও সন্ত্রাসী হামলা হিসেবে বিবেচনা করে তদন্ত করছে তারা। খবর বিবিসি ও দ্য সানের।

শুক্রবার ‘শান্তির দেশ’খ্যাত নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুটি মসজিদে ভিডিও গেম স্টাইলে সন্ত্রাসী হামলা চালায় অস্ট্রেলীয় নাগরিক খ্রিস্টান শ্বেতাঙ্গ সন্ত্রাসী ব্রেনটন টেরেন্ট। মুসলিমদের বিরুদ্ধে ইতিহাসের অন্যতম ভয়াবহ এ হামলায় নিহত হন জুমার নামাজরত ৫০ মুসলি­। এ ঘটনার পর নিন্দার ঝড় বইছে বিশ্বজুড়ে। ফুঁসে ওঠে মুসলিম বিশ্ব। এর পরদিনই লন্ডনে এক মুসলি­র ওপর হাতুড়ি নিয়ে হামলা চালায় এক শ্বেতাঙ্গ সন্ত্রাসী। শনিবার রাতে লন্ডনের হিথ্রো বিমানবন্দরের পাশে কিশোরের ওপর ছুরি ও বেসবল ব্যাট নিয়ে হামলা চালানো হয়।

সোমবার নেদারল্যান্ডসে হয় আরেক সন্ত্রাসী হামলা। দ্য গার্ডিয়ান জানিয়েছে, উত্রেচ শহরের ট্রামস্টেশনে একটি ট্রাম লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়ে দ্রুতই ঘটনাস্থল ত্যাগ করে বন্দুকধারী। খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তিনটি হেলিকপ্টারে করে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় নিরাপত্তা বাহিনী। ঘিরে ফেলে পুরো এলাকা। জনসাধারণকে ওই এলাকা এড়িয়ে চলার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। পুলিশের মুখপাত্র বার্নহার্ড জেন্স বলেন, ‘ধারণা করা হচ্ছে প্রাইভেট কার নিয়ে সন্দেহভাজন হামলাকারী পালিয়ে থাকতে পারে। যত দ্রুত সম্ভব আমরা ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করতে চাই।’ হামলায় একাধিক হামলাকারী জড়িত থাকতে পারে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি।

হামলার সন্দেহভাজন বন্দুকধারীর একটি ছবি প্রকাশ করেছে ডাচ পুলিশ। সিসিটিভি থেকে নেয়া ছবিটি প্রকাশ করে উত্রেচ পুলিশ জানিয়েছে, সন্দেহভাজনের নাম গোকমেন তানিস। তিনি একজন তুর্কি নাগরিক ও বয়স ৩৭ বছর। একই সঙ্গে প্রত্যক্ষদর্শীদের কাছে যদি সন্দেহভাজনের ছবি তাকে তা পাঠানোর আহ্বান জানানো হয়েছে। ডাচ সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত ফুটেজে এক ব্যক্তিকে মাটিতে পড়ে থাকতে দেখা গেছে এবং সাংবাদিকরা জানিয়েছেন অন্তত ২০ জনকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

হামলার পর উত্রেচ প্রদেশের জন্য সন্ত্রাসী হামলার সতর্কতা সর্বোচ্চ পর্যায়ে নিয়ে গেছে ডাচ সরকার। সারা দেশের মসজিদ, স্কুল ও পরিবহনের কেন্দ্রস্থলগুলোতে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। এ ঘটনায় প্রতিক্রিয়া জানিয়ে ডাচ প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুট বলেছেন, হামলার ঘটনায় তিনি ‘গভীর মর্মাহত এবং বিষয়টি নিয়ে আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে।’

সন্ত্রাস দমন বিভাগের সমন্বয়কারী পিয়েটার-জাপ আলবার্সবার্গ এক বিবৃতিতে বলেছেন, উত্রেচ প্রদেশের জন্য হুমকির আশঙ্কার সতর্কতা সর্বোচ্চ ৫-এ নিয়ে যাওয়া হয়েছে। হামলাকারী এখনও পলাতক। সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের মোটিভ বাদ দেয়া যাচ্ছে না। টুইটারে দেয়া বার্তায় তিনি নাগরিকদের স্থানীয় পুলিশের নির্দেশনা মেনে চলার আহŸান জানিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *