রাখাইনের গ্রামে মর্টার-বিমান হামলা চালাচ্ছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী

পূর্ব এশিয়া লিড নিউজ

(রাখাইন, মিয়ানমার) মিয়ানমারের রাখাইনে গ্রামবাসীর ওপর নির্বিচারে বিমান হামলা চালাচ্ছে দেশটির সেনাবাহিনী। বৃষ্টির মতো ফেলছে মর্টার ও বোমা। জঙ্গি বিরোধী অভিযানের নামে প্রত্যন্ত এলাকাগুলোতে চালানো হচ্ছে এসব হামলা। সেই সঙ্গে ঘরে ঘরে চলছে তল­াশি অভিযান। হামলায় এখন পর্যন্ত গুরুতর আহত হয়েছে শিশুসহ ৮ জন।

বিমান হামলার ফলে আগুণ লেগে ছাই হয়ে গেছে বহু ঘরবাড়ি। প্রাণ বাঁচাতে গ্রাম ছেড়ে পালাচ্ছে হাজার হাজার নারী ও শিশু। অবশিষ্ট যারা রয়েছে ধর্ষণ-হয়রানির ভয়ে বাড়ি থেকে বের হতে পারছে না। গ্রামের বন-জঙ্গলে টহল দিচ্ছে সেনা সদস্যরা। বৃহস্পতিবার এ খবর দিয়েছে ইরাবতী।

বিদ্রোহী গোষ্ঠী আরাকান আর্মি ও আরাকান সলভেশন আর্মির সদস্যরা লুকিয়ে রয়েছে সন্দেহে সোমবার থেকে রাখাইনের দক্ষিণাঞ্চলের ম্রাউক-উ এলাকার গ্রামগুলোতে বিমান ও স্থল হামলা শুরু হয়। বৃহস্পতিবার শেষ খবর পাওয়া হামলা অব্যাহত রয়েছে। বিমান হামলার শিকার গ্রামগুলোর মধ্যে রয়েছে ইয়র হোয়া ত।

গ্রামবাসী বলছে, এ এলাকায় কোনো জঙ্গি বা সন্ত্রাসী লুকিয়ে নেই। তারপরও আমাদের ঘর-বাড়ির ওপর বৃষ্টির মতো মর্টার শেল ফেলা হচ্ছে। ইউনেসকোর বিশ্বঐতিহ্যের তালিকাভুক্ত ম্রাউক-উ হেরিটেজ অঞ্চল থেকে ১০ কিলোমিটারের মধ্যে অবস্থিত গ্রামটি। হামলার পর ভয়ে-আতঙ্কে এ গ্রাম থেকেই অন্তত ২০০ নারী ও শিশু পালিয়েছে। আশ্রয় নিয়েছে ম্রাউক-উ শহরে অবস্থিত চিত থং প্যাগোডায়। এটাই এখন গ্রামবাসীর অস্থায়ী আশ্রয়শিবির হয়ে উঠেছে।

আশ্রয়শিবির থেকে বিমান হামলার অভিজ্ঞতা জানিয়ে ড থেইন থেইন অয় নামে গ্রামের এক নারী বলছেন, সোমবার তার গ্রামে বেশ কয়েকটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে। একটি বোমা তার বাড়ির ওপর এসে পড়ে। এতে তার পরিবারের দুই জন গুরুতর আহত হয়। তিনি মনে করেন, মর্টার শেলগুলো ম্রাউক-উভিত্তিক সেনাবাহিনীর হালকা পদাতিক বাহিনীর ৫৪০ নম্বর ব্যাটালিয়ন থেকে ছোড়া হয়েছে। ম্রাউক-উ হেরিটেড অঞ্চলে অবস্থিত কোই থং প্যাগোডার কাছেই ব্যাটালিয়নটির ঘাটি।

ড মোয়ে ইয়াইং সেইন নামে একই গ্রামের আরেক নারী জানান, মুহূর্মুহু হামলায় বাড়ি থেকে বের হতে ভয় পাচ্ছিলেন তিনি। দিনের বেলায় নিকটস্থ বনের মধ্যে সেনাবাহিনীর সদস্যদের টহল দিতে দেখেছেন তিনি। রাখাইনের গ্রাম এলাকায় বহু গ্রামেই এখনও আধুনিক টয়লেটের চল শুরু হয়নি। গ্রামের মেয়ে-ছেলেরা বনে-জঙ্গলেই প্রাকৃতিক কাজ সারেন। কিন্তু সর্বত্র সেনাবাহিনীর আনাগোনা বেড়ে যাওয়ায় যৌন হয়রানির ভয়ে রাতের বেলা বাইরে হতে পারেন না।

বাঙ্কার খুড়ছেন অনেকেই

মর্টার শেল থেকে বাঁচতে বাড়িতে বাঙ্কার খুড়ছেন অনেকেই। রাতের বেলা সেখানেই ঘুমান। ড খাইন স থান নামে এক নারী বলেন, ‘অন্ধকার হলেই আমরা ভয়ে ভয়ে থাকি। বাড়িতে শান্তিতে ঘুমাতে পারিনা। রাতে আমরা মাটির নিচে বাঙ্কারে ঘুমাই।’

বিমান হামলা থেকে অল্পের জন্য বেঁচে গেছেন ড কিয়ার হতাই সেইন। তিনি জানান, গোলাগুলি শুরু হলে একটি বোমার তাদের বাড়ির ওপর পড়ে। এ সময় ঘরে মেঝেয় শুয়ে পড়েছিল পরিবারের সবাই। তা সত্তে¡ও মর্টারের আঘাতে গুরুতর আহত হন তিনি ও তার স্ত্রী। তাদের বাড়িতে ১২০ মিলিমিটারের একটি মর্টারের খোসা পড়ে থাকতে দেখেছে ইরাবতীর প্রতিবেদক।

হতাই সেইন বলেন, ‘আমার গ্রামে আরাকান আর্মির একজন যোদ্ধাও আমি কখনও দেখিনি। বিদ্রোহী খোঁজার নামে সেনাবাহিনী আমাদের ওপরই আগ্রাসী অভিযান চালাচ্ছে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *