ডাক বিভাগের আর্থিক সেবা ‘নগদ’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশ

(ঢাকা, বাংলাদেশ) ব্যাংকিং সুবিধাবঞ্চিত তৃণমূলের মধ্যে কম খরচে দ্রুত ও নিরাপদে আর্থিক লেনদেনের সুবিধা দিতে বাংলাদেশ ডাক বিভাগের ডিজিটাল আর্থিক সেবা ‘নগদ’ এর উদ্বোধন করা হয়েছে। স্বাধীনতা দিবসে বাংলাদেশ ডাক বিভাগের ডিজিটাল আর্থিক সেবা ‘নগদ’-এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মঙ্গলবার বিকেলে গণভবনে স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে স্মারক ডাকটিকিট প্রকাশ এবং নগদের উদ্বোধন করেন তিনি। তৃণমূলের মানুষের মাঝে আর্থিক লেনদেনের সুবিধা পৌঁছে দিতে ডাক বিভাগ এই সেবা চালু করল। এর মাধ্যমে কম খরচে ও দ্রুত আর্থিক লেনদেন করা যাবে। খবর বাসস

 ‘নগদ’ আর্থিক সেবা হচ্ছে ডাক বিভাগের একটি সম্প্রসারিত ডিজিটাল আর্থিক সেবা। যা বিভিন্ন ডিজিটাল চ্যানেল যেমন অ্যাপ, মোবাইল ফোন, এটিএম, পিওএস টার্মিনাল, এনএফসি-এনাবেল্ড ডিভাইস, চিপ, ইলেকট্রনিক্যাল এনাবেল্ড কার্ড, বায়োমেট্রিক ডিভাইস, ট্যাবলেটসহ অন্যান্য সব ডিজিটাল সিস্টেমের মাধ্যমে দ্রুত আর্থিক লেনদেনে সক্ষম। জনগণের ক্রমবর্ধমান আর্থিক লেনদেনের চাহিদা মেটাতে ডিজিটাল আর্থিক লেনদেনের অংশ হিসেবে বর্তমানে প্রচলিত ‘পোস্টাল ক্যাশ কার্ড’ এবং ‘ইএমটিএস’ সেবার সর্বাধুনিক রূপ ‘নগদ’।

এর আগে ব্যাংকিং সুবিধা বঞ্চিত জনসাধারণের আর্থিক অন্তর্ভুক্তি-এই মূলনীতির ওপর ভিত্তি করে ২০১০ সালের ২৬ মার্চ ডাক বিভাগের ‘পোস্টাল ক্যাশ কার্ড’ এবং ‘ইএমটিএস’ সেবা চালু করা হয়। ডাক বিভাগের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ডিজিটাল চ্যানেলগুলো যেমন অ্যাপ, মোবাইল ফোন (স্মার্ট ও ডিজিটাল ফিচার ফোন), এটিএম, পিওএস টার্মিনাল, এনএফসি ইনেবলড ডিভাইস, চিপ, ইলেকট্রনিক্যালি ইনেবলড কার্ড, বায়োমেট্রিক ডিভাইস, ট্যাবলেটসহ বিভিন্ন ডিজিটাল সিস্টেমের মাধ্যমে দ্রুত আর্থিক লেনদেন সম্পন্ন করা যাবে এই সেবার আওতায়।

৬৬ শতাংশ আর্থিক অন্তর্ভুক্তির বাইরে থাকা জনগোষ্ঠীকে এবং ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের আর্থিক মূলধারার সঙ্গে যুক্ত করার লক্ষ্যে ‘নগদ’ কাজ করবে। খুব অল্প সময়ের মধ্যেই এটি দেশের সব শ্রেণি-পেশার মানুষের আর্থিক লেনদেনের প্রধান মাধ্যম হবে বলে আশা করছে ডাক বিভাগ। এ ছাড়া এ দিন ১০ টাকা মূল্যমানের স্মারক ডাকটিকিট, ১০ টাকা মূল্যমানের উদ্বোধনী খাম এবং ৫ টাকা মূল্যমানের ডাটা কার্ড আনুষ্ঠানিকভাবে অবমুক্ত করেন প্রধানমন্ত্রী।

এগুলো মঙ্গলবার থেকেই ঢাকা জিপিওর ফিলাটেলিক ব্যুরোতে বিক্রি করা হচ্ছে। পরে অন্যান্য জিপিও এবং প্রধান ডাকঘরসহ দেশের সব ডাকঘরে এসব টিকিট বিক্রি করা হবে। অনুষ্ঠানে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *