ভোট না দিলে জরিমানা গুনতে হয় যে দেশে

ইউরোপ

(ব্রাসেল, বেলজিয়াম) বর্তমানে বাংলাদেশে উপজেলা নির্বাচনের মৌসুম চলছে। কিন্তু নির্বাচনে প্রধান সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে ভোটারদের অনুপস্থিতি। নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে সচেতনতামূলক সব ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হলেও ভোটকেন্দ্রে ভোটারদের আকৃষ্ট করতে ব্যর্থ হয়েছে তারা। উপজেলা নির্বাচনের বেশিরভাগ ভোটকেন্দ্রেই ভোটারদের উপস্থিতি হাতেগোনা। তবে ভোটারদের উপস্থিতি বাধ্যতামূলক ইউরোপের দেশ বেলজিয়ামে। ভোটাররা ভোটদানে ব্যর্থ হলে গুনতে হয় জরিমানা।

বেলজিয়ামে ফেডারেল বা কেন্দ্রীয় নির্বাচন হবে আগামী ২৬ মে। এ ছাড়া বেলজিয়ামের ইউরোপীয় সংসদের নির্বাচনও ওই একই দিনে অনুষ্ঠিত হবে। গত ডিসেম্বরে অনাস্থা ভোটে হেরে ইস্তফা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী চার্লস মিশেল। ফলে বেলজিয়ামের মানুষ এখন একজন প্রধানমন্ত্রীর আশায় এ নির্বাচনের দিকে তাকিয়ে রয়েছেন।

বেলজিয়ামে ১৮ বছরের বেশি বয়সী নাগরিকদের ভোট দেয়া বাধ্যতামূলক। কোনো নাগরিক দেশের বাইরে থাকলে অনলাইনে ভোট দিতে পারবেন অথবা অন্য কাউকে লিখিতভাবে দায়িত্ব দিয়ে যেতে পারেন নিজের ভোট দেয়ার জন্য।

এর পরও যদি কোনো ভোটার যথাযথ কারণ ছাড়া ভোটদানে বিরত থাকেন, তবে প্রথমবার তাকে ২০ মার্কিন ডলার, যা বাংলাদেশি টাকায় এক হাজার ৬৯০ টাকা জরিমানা করা হবে। পরবর্তী সময় ওই ব্যক্তি যদি আবারও একই কাজ করেন, তবে তাকে ৫০ মার্কিন ডলার বা চার হাজার ২২৩ টাকা দিতে হবে। এই জরিমানা আদায়ের জন্য তার বাড়ির ঠিকানায় চিঠি পাঠানো হবে। এর পর ওই ব্যক্তির কাছ থেকে আদায় করা হবে এ অর্থ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *