লন্ডনে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দেয়া হচ্ছে সমকামিতার শিক্ষা, অভিভাবকদের প্রতিবাদ-বিক্ষোভ

ইউরোপ

(লন্ডন, যুক্তরাজ্য) যুক্তরাজ্যের প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে শিশুদের শিক্ষা দেয়া হচ্ছে সমকামিতা। বিভিন্ন পরিবার সম্পর্কে শিক্ষা দেয়ার নামে উৎসাহিত করা হচ্ছে নারীতে নারীতে, পুরুষে পুরুষে যৌনতা ও উভকামিতা। এর প্রতিবাদে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছেন মুসলিম অভিভাবকরা। এই প্রতিবাদ পার্কফিল্ড কমিউনিটি স্কুল থেকে অ্যানডারটন পার্ক স্কুল, বার্মিংহাম পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়েছে। পার্কফিল্ড স্কুলে বেশিরভাগ ছাত্রছাত্রীই এশিয়ার। বিশেষ করে এদের মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশী, ভারতীয় ও পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত শিশু।

ডেইলি মেইল জানায়, বেশ কিছুদিন ধরেই এমন প্রতিবাদ জানাচ্ছিলেন এসব শিশুর অভিভাবকরা। শ্রুকবার তারা রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ শুরু করেন। এর আয়োজক ছিলেন শাকিল আফসার। তার ডাকে বিক্ষোভে সমবেত হয়েছিলেন অর্ধশতাধিক মুসলিম। স্লোগানে স্লোগানে তারা বলছিলেন, ‘আওয়ার চিলড্রেন, আওয়ার চয়েস’ অর্থাৎ আমাদের শিশু, আমাদের পছন্দের বিষয়ে প্রাধান্য পাবে’। হাতে লেখা একটি ব্যানারে লেখা, ‘শিশুদের যৌনতায় আকৃষ্ট করাকে না বলুন’। আরেকজনের হাতে কালো কালিতে লেখা ‘শিশুদের শিশু থাকতে দিন’।

ওইসব স্কুলে মাত্র ৪ বছর বয়স, এমন শিশুদের সমকামিতা বিষয়ক শিক্ষা দেয়া হচ্ছে। এমন শিক্ষা শিশুদের শৈশব মনমানসিকতা থেকে দূরে সরিয়ে, যৌনতায় আকৃষ্ট করবে বলে মনে করেন বিশ্লেষকরা। মাত্র ৪ বছর বয়সী শিশুকে কেন এমন শিক্ষা দেয়া হবে এ বিষয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে অভিভাবকদের মধ্যে। তাই তারা এই শিক্ষা বন্ধ করার জন্য বিক্ষোভ করছেন। বার্মিংহামের অ্যান্ডারটন পার্ক প্রাইমারি স্কুলের গেটে গত দুই সপ্তাহ ধরে এমন বিক্ষোভ হচ্ছে।

এমন বিক্ষোভ আয়োজনের মূলে থাকা শাকিল আফসারের (৩১) এক ভাইজি ও ভাইপো পড়াশোনা করে ওই স্কুলে। তিনি বলছেন, অভিভাবকরা মনে করছেন শিশুদেরকে ভিন্ন এক নৈতিক শিক্ষার দিকে বাধ্য করা হচ্ছে। নারীতে নারীতে সমকামিতা, পুরুষে পুরুষে সমকামিতা, উভকামিতা, হিজড়া বিষয়ক ইস্যুতে এসব যৌন শিক্ষার বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধর্মীয় সম্প্রদায় হোয়াটসঅ্যাপসহ প্রতিবাদ জানাচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

পিতামাতাদের মধ্যে এমন উদ্বেগ দেখা দিয়েছে ম্যানচেস্টার, ক্রাইডন, ওল্ডহ্যাম, ব্লাকবার্ন ও ব্রাডফোর্ডে। অভিভাবকরা এ ইস্যুতে এতটাই উত্তেজিত যে, স্কুলের হেডটিচার এ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করতে সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

তবে এ ইস্যুটি সহজে দূর হচ্ছে না। বুধবার নারী-পুরুষের সম্পর্ক, যৌন শিক্ষাকে আগামী বছরের সেপ্টেম্বর থেকে ইংলিশ স্কুলগুলোতে বাধ্যতামূলক করার পক্ষে ভোট দিয়েছেন ৫৩৮ জন এমপি। বিপক্ষে ভোট দিয়েছেন মাত্র ২১ জন। এমন কারিকুলাম প্রায় ২০ বছরের মধ্যে প্রথম আপডেট করা হয়েছে। এ কারিকুলামে বিভিন্ন রকম পরিবার সম্পর্কে শিক্ষার নামে সমকামিতাকেই উৎসাহিত করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *