নেপালে প্রচণ্ড ঝড়বৃষ্টিতে ২৫ জনের মৃত্যু, আহত ৪০০

পূর্ব এশিয়া

(কাঠমান্ডু, নেপাল) নেপালের দক্ষিণাঞ্চলের বেশ কয়েকটি এলাকায় তীব্র ঝড়বৃষ্টিতে অন্তত ২৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন চার শতাধিক লোক। রোববার সন্ধ্যায় দেশটির রাজধানী কাঠমান্ডু থেকে ১২০ কিলোমিটার দক্ষিণের কৃষিভিত্তিক এলাকা বারা ও পারসা জেলার ওপর দিয়ে তীব্র ঝড়বৃষ্টি বয়ে যায়। ঝড়বৃষ্টির পর উদ্ধার অভিযান শুরু হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত অনেক এলাকায় উদ্ধারকারীরা এখনও পৌঁছতে পারেননি। তাই মৃতের সংখ্যা আরও বাড়ার আশঙ্কা রয়েছে। আলজাজিরার প্রতিবেদনে এই খবর জানানো হয়েছে।

ভয়াবহ এই ঝড়ে আহত ও নিহতের খবরটি নিশ্চিত করে টুইট করেছেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী কে পি শর্মা অলি। এক টুইট বার্তায় ঝড়ে ২৫ জনের মৃত্যু ও চার শতাধিক ব্যক্তির আহত হওয়ার খবর নিশ্চিত করে নিহতদের পরিবারের প্রতি গভীর শোক ও সমবেদনা জানিয়েছেন।

বারা জেলার শীর্ষ কর্মকর্তা রাজেশ পাউদেল জানিয়েছেন, ক্ষতিগ্রস্ত অনেক এলাকায় উদ্ধারকারীরা এখনও পৌঁছতে পারেননি, তাই মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি। প্রধানমন্ত্রীর টুইটে বলা হয়েছে, উদ্ধার কার্যক্রম পরিচালনায় ও জরুরি ত্রাণ সহায়তা দেয়ার জন্য হেলিকপ্টার প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর খবরে বলা হয়, তীব্র ঝড়ের সঙ্গে ভারী বৃষ্টিপাতে বড় বড় গাছ, বৈদ্যুতিক খুটি ও টেলিফোনের লাইন উপড়ে পড়েছে। এতে হতাহতের ঘটনা বেশি ঘটেছে। পুলিশ কর্মকর্তা শানু রাম ভাটারি জানিয়েছেন, প্রচণ্ড ঝড়ে ভেঙে পড়া দেয়ালের নিচে চাপা পড়ে লোকজন মারা গেছে। এছাড়া ঝড়ে গাড়ি উল্টে গিয়েও যাত্রীরা নিহত ও আহত হয়েছে।

এদিকে ঝড়ে দক্ষিণের জেলা দুটির অনেক গ্রাম কার্যত বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। এসব এলাকায় আটকাপড়াদের উদ্ধারে পুলিশ এবং উদ্ধারকারীরা পৌঁছেছে। পুলিশ কর্মকর্তা ভাটারি বলেন, পার্শ্ববর্তী জেলাগুলো থেকে পুলিশ এবং সেনাবাহিনী নিয়ে আটকাপড়াদের সহায়তায় সোমবার সকাল থেকে কাজ শুরু হয়েছে।সাধারণত এপ্রিল এবং মে মাসের মধ্যে দেশটিতে প্রচণ্ড আকারে ঝড় হলেও রোববারের এই ঝড়কে অস্বাভাবিক বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *