ক্রাইস্টচার্চ মসজিদ হামলা নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য; পার্লামেন্টে ভর্ৎসনার মুখে অস্ট্রেলীয় সিনেটর

এশিয়া প্যাসিফিক

(মেলবোর্ন, অস্ট্রেলিয়া) নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে হামলার ঘটনায় মুসলিমবিদ্বেষী বক্তব্য দিয়ে আলোচনায় এসেছিলেন অস্ট্রেলীয় সিনেটর ফ্রেজার অ্যানিং। তাকে পার্লামেন্ট থেকে অপসারণের জন্য ১০ লাখ লোক অনলাইনে আবেদন জানিয়েছেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে বুধবার দেশটির পার্লামেন্টে ভর্ৎসনা প্রস্তাবের মুখোমুখি হতে যাচ্ছেন ওই সিনেটর। এ খবর জানিয়েছে নিউজ অস্ট্রেলিয়া।

মঙ্গলবার দেশটির পার্লামেন্টে ভারপ্রাপ্ত গভর্নমেন্ট সিনেট নেতা সিমোন বার্মিংহাম প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসনের সঙ্গে সুর মিলিয়ে বলেন, ‘ডিম নিক্ষেপকারী বালককে চপেটাঘাত দেয়ার কারণে মুসলিম বিদ্বেষী সিনেটরকে অভিযুক্ত করা উচিত। অ্যানিংয়ের উদ্দেশে বার্মিংহাম বলেন, ‘আপনার মন্তব্যে ন্যূনতম মানবিকতার অভাব প্রকাশ পেয়েছে।’ তিনি আরো বলেন, ‘আপনার আচরণ সন্ত্রাসবাদ ও সহিংসতাকে আরো উসকে দিয়েছে। এই পার্লামেন্টে যারা নির্বাচিত হয়ে এসেছেন তাদের এ ধরনের আচরণ একেবারেই কাম্য নয়।’

গত ১৫ মার্চ নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দুটি মসজিদে হামলা চালায় অস্ট্রেলীয় নাগরিক ব্রেন্টন ট্যারান্ট। এতে ৫০ জন নিহত হয়। এ ঘটনায় নিউজিল্যান্ডের রাষ্ট্রপ্রধান থেকে শুরু করে সবাই যখন হতাহতের পাশে দাঁড়াচ্ছিলেন তখন অস্ট্রেলীয় সিনেটর ফ্রেজার অ্যানিং বলেন, মুসলিম অভিবাসন ও সহিংসতা যে ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত, ক্রাইস্টচার্চ হামলার পরও কি কেউ তা অস্বীকার করতে পারবে?

এরপর তার বক্তব্যের প্রতিবাদে এক অনুষ্ঠানে তাঁর মাথায় ডিম ভাঙে ১৭ বছরের অস্ট্রেলীয় কিশোর উইল কনোলি। তৎক্ষণাৎ তাকে চড়-থাপ্পড় মারেন সিনেটর অ্যানিং। ওই কিশোরকে চড়-থাপ্পড় মারার কারণেও ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *