রামের মূর্তি বৈধ হলে আমারটা নয় কেন: মায়াবতীর প্রশ্ন

ভারত

(নয়াদিল্লি, ভারত) ‘রামের মূর্তি বৈধ হলে আমারটা নয় কেন’। নিজের ও দলের প্রতীক হাতির মূর্তি নির্মাণ বিতর্কে বিরোধীদের প্রতি এমন প্রশ্ন ছুড়ে দিয়েছেন উত্তর প্রদেশের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও বহুজন সমাজ পার্টির প্রধান মায়াবতী। প্রশ্ন তুলেছেন, অযোধ্যায় রামের ২২১ মিটার উঁচু মূর্তি নির্মাণ প্রস্তাব করা হয়েছে। কেন এসব বিষয় নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয় না। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়ার।

উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালে রাজ্যের বিভিন্ন স্থানে তার ও দলিত সম্প্রদায়ের অন্য নেতাদের অনেক মূর্তি নির্মাণ করা হয়। সুপ্রিম কোর্ট ৮ ফেব্রুয়ারি মায়াবতীকে জানিয়ে দেয় যে, লখনৌ ও নয়ডাতে নিজের ও তার দলের প্রতীক হাতি স্থাপনের জন্য জনসাধারণের যে টাকা তিনি ব্যয় করেছিলেন তা ফেরত দিতে হবে। এ নিয়ে মঙ্গলবার ওই পিটিশনের জবাব দিয়েছেন মায়াবতী।

কোর্টে জমা দেয়া প্রতিবেদনে মূর্তি স্থাপনের জন্য অর্থব্যয় প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘স্মৃতিস্তম্ভগুলি সামাজিক সংস্কারকদের মূল্যবোধ ও আদর্শ উন্নয়নের উদ্দেশ্য তৈরী করা হয়েছে, বিএসপির প্রতীক উন্নয়নের জন্য নয়।’ তিনি আরও বলেন, নির্মাণকার্যের জন্য যে অর্থ ব্যয় হয়েছে তা বিধানসভা থেকে পাশ হওয়া নির্মাণ তহবিলের বরাদ্দ অর্থ থেকে নেয়া হয়েছে।

লক্ষ্ণৌ, নয়ডা এবং রাজ্যের কয়েকটি স্থানে ২,৬০০ কোটি টাকারও বেশি অর্থ ব্যয়ে স্মৃতিস্তম্ভ ও মূর্তি নির্মিত হয়েছিল

তিনি বলেন, ভারতে স্মৃতিস্তম্ভ ও মূর্তি নির্মাণ কোনো নতুন ঘটনা নয়। কংগ্রেসের সময়ে কেন্দ্র ও রাজ্যের বিভিন্ন এজেন্সি দেশের বিভিন্ন স্থানে সরকারি অর্থে প্রতিস্থাপন করেছে জওয়াহারলাল নেহরু, ইন্দিরা গান্ধী, রাজীব গান্ধী, পি ভি নরসীমা রাও-এর মূর্তি। কিন্তু মিডিয়া বা পিটিশনকারী এ বিষয়ে কখনো কোনো প্রশ্ন তোলে নি।

মায়াবতী গুজরাটে সরদার প্যাটেলের ১৮২ মিটার উঁচু মূর্তি নির্মাণের কথা উল্লেখ করেছেন। তিনি বলেছেন, ৩০০০ কোটি রুপি সরকারি অর্থে গুজরাট রাজ্য সরকার এটি নির্মাণ করছে। অন্যদিকে যোগী আদিত্যনাথের সরকার প্রভু রামের মূর্তি নির্মাণের পরিকল্পনা করেছেন। এখাতে প্রাথমিকভাবে ভূমি অধিকগ্রহণ, পরীক্ষা, ডিজাইন নির্ধারণ এবং প্রকল্প বাবদ খরচ ধরা হয়েছে ২০০ কোটি রুপি।

সরকারি অর্থে মুম্বইয়ে শিবাজি, লক্ষেèৗতে অটল বিহারি বাজপেয়ী, অন্ধ্র প্রদেশে ওয়াই এস রাজশেখর রেড্ডি, কর্ণাটকের মান্দিয়ায় ৩০০০ কোটি রুপিতে প্রস্তাবিত ৩৫০ ফুট উঁচু মাদার চ্যাভরের মূর্তি নির্মাণ, ১৫৫ কোটি রুপিতে অমরাবতীতে এন টি রমা রাওয়ের মূর্তি ও ৫০ কোটি রুপিতে চেন্নাইয়ের মেরিনা বিচে জে জয়ললিতার মূর্তি নির্মাণের কথা তিনি উদাহরণ হিসেবে তুলে ধরেন ।

মায়াবতী বলেছেন, তিনি নিজেকে জনগণের জন্য সঁপে দিয়েছেন। সে জন্য তিনি অবিবাহিত থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। নিপীড়িত মানুষকে উপরে তুলে ধরার জন্য নিজের জীবনকে উৎসর্গ করেছেন। তাই রাজ্যের এমপিরা বাজেট অনুমোদন করে তার স্মৃতিস্তম্ভ ও মূর্তি নির্মাণ করেছেন। কিন্তু তা সহ্য করতে পারছেন না অনেকে। তার রাজ্যে বিপুল সংখ্যক হাতির মূর্তি নির্মাণ প্রসঙ্গে মায়াবতী বলেন, তার বহুজন সমাজ পার্টির নির্বাচনী প্রতীক হাতি। রিপাবলিকান পার্টির প্রতিষ্ঠাতা বি আর আম্বেদকর এই নির্বাচনী প্রতীক বাছাই করেছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *