অ্যাসাঞ্জের গ্রেফতারের নেপথ্যে যুক্তরাষ্ট্র বলে দাবি তার আইনজীবীর

ইউরোপ

(লন্ডন, যুক্তরাজ্য) উইকিলিকস প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের গ্রেফতারের নেপথ্যে যুক্তরাষ্ট্র বলে দাবি করেছেন তার এক আইনজীবী। বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে লন্ডনস্থ ইকুয়েডর দূতাবাস থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। যুক্তরাষ্ট্রের অনুরোধেই ইকুয়েডর অ্যাসাঞ্জকে গ্রেফতার করেছে বলে দাবি করেছেন অ্যাসাঞ্জের আইনজীবী জেন রবিনসন।

জামিন শর্ত ভঙ্গের অভিযোগে অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে পরোয়ানা জারি ছিল ব্রিটিশ সরকারের। বৃহস্পতিবার সেই পরোয়ানা অনুযায়ীই তাকে গ্রেফতার করা হয়। তবে আইনজীবী জেন রবিনসন বলেছেন, ‘কেবল জামিন শর্ত ভঙ্গের কারণে নয়, অ্যাসাঞ্জকে যুক্তরাষ্ট্রে প্রত্যার্পণের অনুরোধ রক্ষা করতে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।’

২০১২ সালের জুন থেকে লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাসে রাজনৈতিক আশ্রয়ে ছিলেন জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ। ৪ এপ্রিল (বৃহস্পতিবার) উইকিলিকসের টুইটে বলা হয়, ইকুয়েডর সরকারের উচ্চ পর্যায়ের দুইটি সূত্র থেকে তারা নিশ্চিত হয়েছে যে কয়েক ঘণ্টা থেকে কয়েক দিনের মধ্যে অ্যাসাঞ্জকে দূতাবাস থেকে তাড়ানো হতে পারে। সেই ধারাবাহিকতায় রাজনৈতিক আশ্রয় প্রত্যাহার করে বৃহস্পতিবার তাকে ব্রিটিশ পুলিশের হাতে তুলে দেয় ইকুয়েডর।

২০১৮ সালের নভেম্বরে ভার্জিনিয়ার আলেকজান্দ্রিয়া জেলা আদালতে জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রে অভিযোগ গঠনের নথি ভুল করে ফাঁস করে ফেলেন প্রসিকিউটররা। তবে গোপনে সেই বিচারিক অভ্যুত্থান ঘটানোর প্রচেষ্টা চলছে। স্পষ্ট করে কিছু বলা হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *