নতুন ভিডিও প্রকাশ করে প্রতিশোধের হুমকি আইএস নেতা বাগদাদির

মধ্যপ্রাচ্য লিড নিউজ

দীর্ঘ ৫ বছর পর মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস)-এর নেতা আবু বকর আল বাগদাদির একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে গোষ্ঠীর মিডিয়া নেটওয়ার্ক। এর আগে সর্বশেষ ২০১৪ সালে ইরাকের মসুল থেকে ইরাক ও সিরিয়ার কিছু অংশজুড়ে খেলাফত ঘোষণা করে তার ভিডিও প্রকাশ পেয়েছিল। সোমবার (২৯ এপ্রিল) আইএসের আল-ফুরকান মিডিয়া ১৮ মিনিটের এ ভিডিওটি প্রকাশ করে। এতে জঙ্গি গোষ্ঠীটির আওতাধীন বিভিন্ন অঞ্চল হারানোর প্রতিশোধ নেয়ার শপথ নিয়েছেন আবু বকর আল-বাগদাদি।

প্রকাশিত ভিডিওতে আল-বাগদাদি বলেন, ‘বাঘুজের যুদ্ধ শেষ হয়ে গেলেও এখনও আরও অনেক কিছু বাকি আছে।’ ভিডিওটিতে আল-বাগদাদি সিরিয়ার বাঘুজে আইএসের পরাজয় স্বীকার করে নিয়েই প্রতিশোধের হুমকি দেন তিনি। ভিডিওর শুরুতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করা হয়। ভিডিওতে আবু বকর আল-বাগদাদিকে বসে থাকতে দেখা যায়। এ সময় তার আশপাশে আইএসের কিছু কর্মীকে দেখা যায় মুখোশ পরিহিত অবস্থায়। এতে আল-বাগদাদি বাঘুজের পরাজয়ের পাশাপাশি শ্রীলঙ্কা হামলার বিষয়েও কথা বলেন। একই সঙ্গে মালি ও বুরকিনা ফাসোয় জঙ্গি গোষ্ঠীটির কর্মীদের তৎপরতার প্রশংসাও করেন।

এদিকে ভিডিওটি ঠিক কবে ও কোথায় ধারণ করা হয়েছে, সে সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে বিবিসি। তবে আল-ফুরকান মিডিয়া দাবি করেছে এটি এপ্রিলে ধারণ করা। এদিকে ভিডিওর ব্যক্তি আদৌ আবু বকর আল-বাগদাদি কিনা, তাও নিশ্চিত করে বলতে পারেনি বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

এর আগে বাগদাদি সম্পর্কে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন রকমের গুজব উঠছে। কখনও দাবি করা হয়েছে তিনি মারা গেছেন, কখনও বলা হয়েছে তিনি ধরা পড়েছেন। কখনও দাবি করা হয়েছে বাগদাদি মারাত্মকভাবে আহত। সিরীয় বাহিনীর হাতে আটক হওয়া বা তাকে বিষ খাইয়ে দেওয়ার গুজবও শোনা গেছে।

২০১৭ সালের জুনে বাগদাদির মৃত্যুর খবরকে ‘শতভাগ নিশ্চিত’ দাবি করেছিলেন রাশিয়ার কর্মকর্তারা। তবে এর এক বছর একটি অডিও বার্তা দিয়ে বাগদাদি জানিয়েছিলেন তিনি বেঁচে আছেন। তারপর আর কোনও বার্তা সামনে আসতে দেখা যায়নি।

২০১৪ সালে ইরাক ও সিরিয়ার কিছু অংশ দখল করার পর বিশ্বের মুসলিমদের শাসক হিসেবে নিজেকে ঘোষণা করেন বাগদাদি। ধারণা করা হয়, আইএসের স্বঘোষিত খিলাফতের পতনের পর এখন তিনি ইরাক-সিরিয়া সীমান্তে আত্মগোপনে আছেন। লোকচক্ষুর অন্তরালে থাকা আইএস নেতা বাগদাদি ২০১৪ সালে একবারই নিজের ছবি তুলতে দিয়েছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *