রোজার আগে অতি প্রয়োজনীয় যেসব পণ্যের দাম বাড়ানো হয়েছে

বাংলাদেশ

(ঢাকা, বাংলাদেশ) রোজা এলেই নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বেড়ে যাবে– এ যেন অনেকটা অবধারিত হয়ে গেছে৷ ব্যবসায়ী ও বাণিজ্য মন্ত্রীর আশ্বাস সত্ত্বেও বিভিন্ন পণ্যের দর উর্দ্ধমুখী৷ সরকারি প্রতিষ্ঠান টিসিবির হিসাবেই তার উদাহরণ রয়েছে৷

মজুদ পর্যাপ্ত

দু’দিন আগে এক সংবাদ সম্মেলনে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, ‘আমরা যেরকম চেষ্টা করেছিলাম, (বাজার), সেরকম সহনীয় মাত্রায় রয়েছে৷’ বাণিজ্যমন্ত্রী জানান, ছোলা, তেল, চিনি, ডালসহ রোজায় যেসব পণ্য বেশি লাগে, সেগুলোর দাম বাড়ার কোনো কারণ নেই, যথেষ্ট পরিমাণে বাজারে রয়েছে৷ তবু দাম বাড়ানো হয়েছে অতি প্রয়োজনীয় বেশ কিছু পন্যের।

ছোলা

রোজায় ইফতারির অন্যতম অনুষঙ্গ ছোলা৷ টিসিবির হিসাবে গত বছর এই সময়ে ঢাকায় পণ্যটি বিক্রি হয়েছে ৭০ থেকে ৮৫ টাকায়৷ এখন তার দাম বাজারে ৯০ টাকা ছুয়েছে৷ বছর ব্যবধানে দাম প্রায় সোয়া তিন ভাগ বেড়েছে৷

মশুর ডাল

বর্তমানে ঢাকার বাজারগুলোতে মশুর ডালের দাম মানভেদে প্রতি কেজি ৫৫ থেকে ১২০ টাকা৷ এক মাসের মধ্যে এর দর বেড়েছে ৬ ভাগের বেশি৷ কেজিতে দশ টাকা দাম বেড়েছে শুধু গত এক সপ্তাহেই৷

পেঁয়াজ

গত এক মাসে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ১৫ দশমিক ৩৮ ভাগ৷ ঢাকায় আমদানি করা পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২৫ থেকে ২৮ টাকায় আর দেশি পেঁয়াজের দাম ২৮ থেকে ৩৫ টাকা৷ তবে টিসিবির হিসাবে এই দর এক বছর আগের চেয়ে প্রায় ২০ ভাগ কম৷

রসুন

রোজার আগে সবচেয়ে বেশি দাম বেড়েছে রসুনের৷ বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ১২০ টাকায়৷ একমাসের ব্যবধানে পণ্যটির দাম বেড়েছে কেজিতে ১০ টাকা করে৷ এক বছরে দাম বেড়েছে পৌনে বারো ভাগের মতো৷

আদা

মানভেদে গত এক মাসের আদার দাম বেড়েছে কেজিতে ১০ থেকে ২০ টাকা৷ ১০০ থেকে ১৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে এখন ঢাকার বাজারগুলোতে, যা আগে বিক্রি হতো ৯০ থেকে ১২০ টাকায়৷

চিনি

ইফতারির শরবতেও খরচ বেড়ে যাবে, কেননা, চিনির দাম এক সপ্তাহের ব্যবধানে কেজিতে প্রায় ৫ টাকা বেড়ে গেছে৷ সাড়ে নয় ভাগ দাম বেড়েছে গত এক মাসে৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *