বিক্ষোভের মুখে নিউইয়র্ক সফর বাতিল করলেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট

আমেরিকা

(ব্রাসিলিয়া, ব্রাজিল) পরিবেশ ও সমকামী অধিকার কর্মীদের বিক্ষোভের মুখে পরিকল্পিত যুক্তরাষ্ট্র সফর বাতিল করেছেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জাইর বলসোরানো। এই মাসে নিউ ইয়র্কে তার সম্মানে আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে যোগ দেয়ার কথা ছিল। এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিল ব্রাজিল-আমেরিকান চেম্বার অব কমার্স। খবর দ্য গার্ডিয়ানের।

পরিবেশ নীতি শিথিল ও সমকামীদের অধিকার বাতিল করায় সমালোচনার মুখে রয়েছেন ব্রাজিলের নতুন নির্বাচিত ডানপন্থী প্রেসিডেন্ট  বলসোরানো। তাকে এই বছরের বর্ষসেরা ব্যক্তিত্বের পুরস্কার দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় ব্রাজিল-আমেরিকান চেম্বার অব কমার্স। তবে তাদের এই সিদ্ধান্ত পরিবেশ ও সমকামী অধিকার কর্মীদের  তীব্র সমালোচনার মুখে পড়ে।

সমালোচনার মুখে অনুষ্ঠানে পৃষ্ঠপোষকতা দেয়ার কথা বলে পরে সরে আসে ডেল্টা এয়ারলাইন্স, ফিনান্সিয়াল টাইমস এবং ম্যানেজমেন্ট কনসালটেন্সি প্রতিষ্ঠান বেইন অ্যান্ড কো। উদ্ভূত পরিস্তিতিতে বলসোরানোর মুখপাত্র জেনারেল ওটাভিও রিগো ব্যারোস জানিয়েছেন, ওই নৈশভোজে আর যোগ দেবেন না প্রেসিডেন্ট। কারণ হিসেবে বলা অনুষ্ঠান আয়োজনের বিষয়ে ‘নিউ ইয়র্কের মেয়র এবং স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠীর অব্যাহত প্রতিরোধ ও ইচ্ছাকৃত আক্রমণকে’ দায়ী করা হয়েছে।

গত বছরের অক্টোবরের নির্বাচনে জয়লাভের পর ২০১৯ সালের ১ জানুয়ারি শপথগ্রহণ করেন ‘ব্রাজিলের ট্রাম্প’ নামে খ্যাত সাবেক সেনা কর্মকর্তা বলসোনারো।বিশ্ব রাজনীতিতে এখন পর্যন্ত সর্বশেষ কট্টর-ডানপন্থী নেতা তিনি। শপথগ্রহণের পরপরই ‘সমাজতন্ত্রের কবল থেকে স্বাধীনতা’ ঘোষণা করেন জাইর বোলসোনারো। উন্নয়নশীল দেশগুলোর বলয় থেকে বেরিয়ে পশ্চিমা দুনিয়ার সঙ্গে মিত্রতা স্থাপনের পরিকল্পনা রয়েছে তার।

এরইমধ্যে ট্রাম্পের পদাঙ্ক অনুসরণ করে ব্রাজিলের ইসরায়েল দূতাবাস জেরুজালেমে স্থানান্তরের ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি। এতোদিন পর্যন্ত ফিলিস্তিন ইস্যুতে ‘দুই রাষ্ট্রভিত্তিক’ সমাধানের পক্ষপাতী ছিল ব্রাজিল। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও জাইর বোলসোনারোর প্রতি আস্থাশীল। এই আস্থার নিদর্শন হিসেবে তার অভিষেকে যোগ দিয়েছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও।

ট্রাম্পের মতো বোলসোনারোর বিরুদ্ধেও নারী, সমকামী ও সংখ্যালঘুদের প্রতি ঘৃণা উসকে দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। বিরোধীরা বলছেন, কট্টর-ডানপন্থী সাবেক এই সেনা কর্মকর্তার উত্থানে লাতিন আমেরিকার বৃহত্তম দেশটির গণতন্ত্র হুমকির মুখে পড়বে।

জাইর বোলসোনারো বলেন, আমরা সমাজতন্ত্র, কমিউনিজম, পপুলিজম এবং বামপন্থী চরমপন্থার সঙ্গে প্রণয় চালিয়ে যেতে পারি না। বিদ্যমান অস্থিরতা কাটিয়ে দেশে স্থিতিশীলতা ফেরানোরও অঙ্গীকার করেন তিনি। একইসঙ্গে ব্রাজিলকে পুনরায় একটি ‘মহান রাষ্ট্র’ হিসেবে গড়ে তোলার অঙ্গীকার করেন ট্রাম্পের এই ব্রাজিলিয়ান ভক্ত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *