আমাজনের আগুন নেভাতে বিদেশি সহায়তা নিতে আগ্রহী ব্রাজিল

আমেরিকা লিড নিউজ

ব্রাসিলিয়া, ব্রাজিল- আমাজনের আগুন মোকাবেলায় বিদেশি সহায়তা নিতে আগ্রহী ব্রাজিল। বিদেশি সহায়তা গ্রহণের আগ্রহ ব্যক্ত করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট জাইর বলসোনারো। তিনি বলেছেন, প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ ভূল স্বীকার করে ক্ষমা সহায়তা অর্থ নিয়ে আলোচনা হতে পারে। এছাড়া তহবিলগুলো কেবলমাত্র ব্রাজিলের নিয়ন্ত্রণে থাকবে। মঙ্গলবার তার মুখপাত্র একথা জানান। জি-৭ এর প্রস্তাবের কথা উল্লেখ না করে রাজধানী ব্রাসিলিয়ায় ওতাভিও রিগো ব্যারোস সাংবাদিকদের বলেন, ব্রাজিল সরকার বিশ্বের বিভিন্ন সংস্থা এমন কি দেশ থেকে আর্থিক সহায়তা নিতে আগ্রহী। তবে সহায়তার অর্থ কেবলমাত্র ব্রাজিলের জনগণের নিয়ন্ত্রণে থাকবে।’

এর আগে আমাজনের আগুন নেভাতে শিল্পোন্নত দেশের জোট জি-৭-এর অর্থ সহায়তা প্রত্যাখ্যান করেন বলসোনারো। ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রো তার কাছে ক্ষমা না চাইলে তিনি এ অর্থ সহায়তা নেবেন না বলেও জানান। বলসোনারোর অভিযোগ, ফরাসি প্রেসিডেন্ট তাকে ‘মিথ্যাবাদী’ বলে ব্যক্তিগত আক্রমণ করেছেন। খবরে বলা হয়, জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যুতে লড়াইয়ে বলসোনারো ‘মিথ্যাচার করছেন’ বলে অভিযোগ করেন ম্যাক্রো। ফ্রান্সে সদ্য সমাপ্ত জি-৭ সম্মেলনে বিশ্বনেতাদের পক্ষে আমাজনের আগুন নেভাতে ২২০ কোটি মার্কিন ডলার অর্থ সহায়তা দেয়ার ঘোষণা দেন তিনি।

এর আগে ব্রাজিলের মন্ত্রীরা বলেছিলেন, আগুন নেভাতে তাদের জি-৭-এর অর্থের প্রয়োজন নেই। তাঁরা অভিযোগ করেন, বিদেশি শক্তিগুলো আমাজনের নিয়ন্ত্রণ নিতে চায়। স্যাটেলাইট তথ্য-উপাত্ত থেকে জানা গেছে, ব্রাজিলের অনেক স্থান আগুনে পুড়ছে। এর মধ্যে বেশির ভাগই আমাজন অঞ্চলে। মঙ্গলবার রাজধানী ব্রাসিলিয়ায় বলসোনারো সাংবাদিকদের বলেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে আমাকে যে অপমান করেছেন ম্যাক্রোঁ। তা তাকে তুলে নিতে হবে। প্রথমত, তিনি আমাকে মিথ্যাবাদী বলেছেন।’

দুই দেশের দুই প্রেসিডেন্ট রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গিতে একেবারে বিপরীত মেরুতে অবস্থান করছেন। জেইর বলসোনারো কট্টর ডানপন্থী। আর ম্যাক্রোঁ ফ্রান্সে ডানপন্থীদের নির্বাচনে পরাস্ত করে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন। এদিকে ম্যাক্রোঁর ২৫ বছরের বড় স্ত্রী ব্রিজিতের (৬৫) বয়স নিয়ে হাস্যরস করে ফেসবুকে জেইর বলসোনারো লিখেছেন, ‘এই লোকটিকে অপদস্থ করেন না, হা হা।’ এ ব্যাপারে ম্যাক্রোঁর দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, তারা ‘চরম অপদার্থ।’

এদিকে অর্থ সহায়তা প্রসঙ্গে প্রেসিডেন্ট জেইর বলসোনারোর চিফ অব স্টাফ অনিক্স লোরেনজোনি গত এপ্রিলে প্যারিসে ঐতিহ্যবাহী নটর ডেম ক্যাথেড্রালে আগুন লাগার প্রসঙ্গ টেনে বিদ্রূপ করে বলেন, ‘গির্জাটি বিশ্বের ঐতিহ্যবাহী স্থাপনা, সেটিতে আগুন লাগার ঘটনা যেখানে ম্যাক্রোঁ ঠেকাতে পারেননি, সেখানে তিনি আমাদের দেশকে শেখাতে আসেন।’

আমাজন বিশ্বের সবচেয়ে বড় ঘনবর্ষণ বনাঞ্চল। বেশ কয়েকটি দেশজুড়ে এর বিস্তৃতি থাকলেও এর বেশির ভাগ পড়েছে ব্রাজিলে। আমাজনকে বলা হয় পৃথিবীর ফুসফুস। কয়েক দিন ধরে আগুনে পড়ছে আমাজন। পরিসংখ্যান বলছে, অতীতে কখনো আমাজনে এত অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেনি। ব্রাজিলের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা দ্য ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর স্পেস রিসার্চ (ইনপে) জানিয়েছে, চলতি বছরের প্রথম আট মাসে আমাজনে রেকর্ডসংখ্যক আগুন লাগার ঘটনা ঘটেছে।

গত বছরের এই সময়ের তুলনায় এ বছর ৮৫ শতাংশ বেশি আগুন লেগেছে। চলতি বছরের ২৪ আগস্ট পর্যন্ত আমাজনে অন্তত ৮০ হাজার অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। আমাজনের আগুন নেভাতে সেনাবাহিনী মোতায়েনের পর এবার যুদ্ধবিমানের সাহায্যে পানি ঢালা চলছে। ব্রাজিলের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় অঙ্গরাজ্য রন্ডোনিয়া অংশে আমাজনের আগুন এভাবে নেভানোর চেষ্টা চলছে।

পৃথিবীতে মোট অক্সিজেনের প্রায় ২০ শতাংশই সরবরাহ করে আমাজন। প্রায় ৩০ লাখ স্বতন্ত্র প্রজাতির গাছপালা ও প্রাণীর আবাসস্থল এই আমাজন। প্রতিবছর মিলিয়ন মিলিয়ন টন কার্বন ডাই-অক্সাইড শোষণ করে নেয় আমাজনের বিস্তৃত বনাঞ্চল। আমাজনের আগুনের ভয়াবহতার কারণে এই বন রক্ষায় বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আবেদন জানানো হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *