রাখাইনে ভয়াবহ গণহত্যার মুখে আরও ৬ লাখ রোহিঙ্গা: জাতিসংঘ রিপোর্ট

পূর্ব এশিয়া

নিউইয়র্ক, যুক্তরাষ্ট্র- মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে ভয়াবহ গণহত্যার মুখে রয়েছে আরও ৬ লাখ রোহিঙ্গা । চলাফেরার উপর কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। আগের মতোই চলছে সেনা অভিযান। সেনাবাহিনীর ভয়ে তটস্থ রোহিঙ্গারা। এর প্রভাব তাদের মৌলিক মানবিক চাহিদার উপরও পড়েছে। ২০১৭ সালের গণহত্যার পর নতুন করে অভিযানের মুখে বাস্তুচ্যুত হয়েছে অন্তত ৬৫ হাজার। সোমবার জাতিসংঘের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশনের এক প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে।

জাতিসংঘের ‘ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন’ বা তথ্যানুসন্ধান দল মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর শীর্ষ কয়েকজন জেনারেলকে বিচারের আওতায় আনার আহ্বান জানিয়েছে। প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নিপীড়নের মুখে রাখাইন থেকে পালিয়ে প্রায় ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। তাদের প্রত্যাবাসনও ‘অসম্ভব’ এক বাস্তবতার মুখে রয়েছে।

ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশনের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, এখনও রাখাইনে ৬ লাখ রোহিঙ্গা ‘মানবেতর ও শোচনীয়’ পরিস্থিতির মধ্যে বসবাস করছে। মিয়ানমার তাদের ব্যাপারে এখনও গণহত্যার মানসিকতা পোষণ করে। এ অবস্থায় সেখানে থাকা রোহিঙ্গারা ভয়াবহভাবে গণহত্যার হুমকির মুখে জীবন-যাপন করছেন। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বলছে,  মঙ্গলবার জেনেভায় জাতিসংঘের কার্যালয়ে এই চূড়ান্ত প্রতিবেদন জমা দেয়া হবে।

এর আগে ২০১৭ সালে রাখাইনে গণহত্যা চালায় মিয়ানমার সেনাবাহিনী। গ্রাম জ্বালিয়ে দেয়া, ধর্ষণ ও নির্যাতনের অভিযোগে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর প্রধান মিং অং হ্লেইংসহ উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের বিচারের মুখোমুখি দাঁড় করাতে সুপারিশ জানায় ইউএন ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন। জাতিসংঘ ওই অভিযানকে ‘জাতিগত নিধন’ হিসেবে বর্ণনা করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *