সিরিয়ায় কুর্দি কারাগারে বন্দি ১২ হাজার আইএস

ইউরোপ মধ্যপ্রাচ্য

(হাসাকেহ, সিরিয়া) সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে কুর্দি কারাগারগুলোতে প্রায় ১২ হাজার আইএস জঙ্গি বন্দি রয়েছে। এসব বন্দিদের প্রায় অর্ধেকই এইডস, হেপাটাইটিসসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত। কয়েক মাস ধরে সূর্যের আলো চোখে পড়ে না তাদের। অন্ধকার ও স্যাঁতসেঁতে কারাকক্ষে থাকতে থাকতে শরীরে ঘা হয়ে গেছে। প্রাণে বাঁচতে এখন নিজ দেশে ফিরতে চায় তারা। বেশির ভাগ জঙ্গিই ব্রিটেন, ফ্রান্স ও জার্মানির দেশগুলোর। তবে সিরিয়া, ইরাক, সৌদি, তিউনিশিয়া ও মরক্কোর নাগরিকও রয়েছে।

এএফপি জানিয়েছে, কুর্দি সূত্রগুলো বলছে, প্রায় ১২ হাজার আইএস যোদ্ধা তাদের হাতে বন্দি। উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ হাসাকেহ শহরের বন্দিশালাগুলোতে তাদের রাখা হয়েছে। চলতি বছরের মার্চ মাসে ইদলিবের বাঘাউজে আইএসবিরোধী সর্বশেষ লড়াইয়ে কুর্দিদের হাতে ধরা পড়ে এদের বেশির ভাগ। তবে চলতি মাসে কুর্দিদের বিরুদ্ধে তুরস্কের অভিযানের মুখে বেশ কিছু যোদ্ধা পালিয়ে গেছে বলে জানিয়েছে কুর্দি ও মার্কিন কর্মকর্তারা। বিরোধীদের অভিযোগ, বিশৃঙ্খলার মধ্যে ওই সব জঙ্গিদের মুক্ত করে দেয়া হয়েছে।

কয়েক মাস আগেও নির্মম ও নিষ্ঠুর এই জঙ্গিগোষ্ঠীর যোদ্ধারা দাপিয়ে বেড়িছে সিরিয়া ও ইরাকের বিশাল অঞ্চলজুড়ে। কিন্তু এখন তারা কারাগারগুলোতে পচে মরছে। আইএস জঙ্গিদের বিরুদ্ধে শত শত অভিযোগ রয়েছে। হাজার হাজার মানুষের শিরñেদ করেছে তারা। গণহত্যা, ধর্ষণ, শহরের পর শহর বোমা মেরে উড়িয়ে দেয়া, নারীদের যৌনদাসী হিসেবে ব্যবহার ও শিশুদের জঙ্গিদলে যোগ দিতে বাধ্য করাÑ এমন কোনো অপরাধ নেই যা তারা করেনি।

কুর্দি কারাগারগুলোতে বন্দিদের মধ্যে বেশ কিছু শিশু ও কিশোর যোদ্ধাও রয়েছে। তবে তাদের পৃথক একটি কক্ষে রাখা হয়েছে। বন্দিরা এখন তাদের নিজ নিজ দেশে ফিরতে চায়।

নেদারল্যান্ডসের নাগরিক ৪২ বছর বয়সী বাসেম আবদেল আজিম। মার্চ মাসে সিরিয়ার সরকারি বাহিনীর বিমান হামলায় আহত হয়। কারাগারে বন্দি পাঁচ সন্তানের বাবা আজিমের শেষ ইচ্ছা দেশে পরিবারের কাছে ফেরা। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তাদের ফিরিয়ে নিতে ইউরোপীয় দেশগুলোর প্রতি বারবার আহŸান জানাচ্ছেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত ইতিবাচক কোনো সাড়া দেয়নি ইউরোপ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *