বলিভিয়ায় গণঅভ্যুত্থানের মুখে প্রেসিডেন্ট ইভো মোরালেসের পদত্যাগ

আমেরিকা লিড নিউজ

(লাপাজ, বলিভিয়া) গণঅভ্যুত্থানের মুখে পদত্যাগ করেছেন লাতিন আমেরিকার দেশ বলিভিয়ার প্রেসিডেন্ট ইভো মোরালেস। রবিবার এক টেলিভিশন ভাষণে পদত্যাগের ঘোষণা দেন সাম্রাজ্যবাদবিরোধী হিসেবে পরিচিত এই বাম রাজনীতিক। ভাষণে দেশে সহিংসতা ও নিরাপত্তাহীনতা ছড়িয়ে দেয়ার জন্য সরকারবিরোধীদের তীব্র সমালোচনা করেন তিনি। খবর আল জাজিরার।

গত কয়েকদিন ধরে ব্যাপক বিক্ষোভ-আন্দোলন করে আসছিল দেশটির জনগণ। সেই বিক্ষোভে সমর্থন দেয় পুলিশ ও নিরাপত্তা বাহিনী। সেনাবাহিনী সাফ জানিয়ে দেয়, বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে কোনো সংঘাতে জড়াবে না তারা। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে মোরালেসকে পদত্যাগের আহ্বান জানান দেশটির সামরিক বাহিনীর কমান্ডার উইলিয়ামস কালিম্যান। মোরালেসের সহযোগী ও মিত্রদের কয়েকজনের ওপর হামলা হয়। তাদের বাড়িতেও আগুন দেওয়া হয় বলে অভিযোগ করেন তারা।

এরপর টেলিভিশনে সম্প্রচারিত এক ভাষণে মোরালেস প্রেসিডেন্টের পদ থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দেন। বিক্ষোভকারীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‌’ভাই ও বোনদের ওপর হামলা বন্ধ করুন, জ্বালাও পোড়াও ও হামলা বন্ধ করুন।’ পদত্যাগের ঘোষণায় মোরালেস বলেন, ‘আমি পদত্যাগ করছি। আমার পদত্যাগ পত্র আইনসভার কাছে পাঠিয়ে দিচ্ছি।’ তিনি বলেন, আদিবাসী প্রেসিডেন্ট ও সকল বলিভিয়ানের প্রেসিডেন্ট হিসেবে শান্তির চেষ্টা করা আমার দায়িত্ব।

সম্প্রতি অনুষ্ঠিত নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী কার্লোস মেসাকে পরাজিত করে পুনরায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন ইভো মোরালেস। তবে কারচুপির অভিযোগ তুলে ওই নির্বাচনের ফল প্রত্যাখ্যান করেন পরাজিত প্রার্থী কার্লোস মেসা। দেশজুড়ে সরকারবিরোধী আন্দোলনের ডাক দেন তিনি। যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে মেসার সুসম্পর্ক রয়েছে বলে মনে করা হয়।

২০০৬ সাল থেকে বলিভিয়ার নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন ইভো মোরালেস (৬০)। বিরোধী নেতা কার্লোস মেসা-র ডাকে বিক্ষোভের মুখে সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকেও তাকে পদত্যাগের আহ্বান জানানো হয়। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে রবিবার জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে ফের নির্বাচন দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন তিনি। তবে এর কয়েক ঘণ্টার মাথায় ক্ষমতা থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন এই রাজনীতিক।

সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে কমান্ডার উইলিয়ামস কালিম্যান বলেন, দেশের সংঘাতপূর্ণ পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করে শান্তি ও স্থিতিশীলতার স্বার্থে আমরা প্রেসিডেন্টকে পদত্যাগ করতে বলেছি। টেলিভিশনে সম্প্রচারিত ভাষণে মোরালেস বলেন, আমাদের লড়াই এখানেই শেষ হয়ে যায়নি। সমতা ও শান্তি প্রতিষ্ঠায় এই লড়াই অব্যাহত থাকবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *