হযরত মুহাম্মদের (স) প্রশংসায় কবিতা লিখেছিলেন যে চীনা সম্রাট

চীন

(নানজিং, চীন) ইসলামের শেষ নবী হযরত মুহাম্মদের(স) প্রশংসায় কবিতা লিখেছিলেন চিনা সম্রাট ঝু ইউয়ান জাঙ্গ। হংবু নামেও পরিচিত ছিলেন তিনি। চীনের জাতীয় ভাষা মান্দারিন হরফে তিনি কবিতাটি লিখেছিলেন।

বাইযিযান শিরোণামে ঐতিহাসিক কবিতাটির বাংলা অর্থ এরকম- ‘পৃথিবী সৃষ্টির সূচনা থেকে খোদা তার বাণীর প্রচারকারী নিযুক্ত করে রেখেছেন। সুদূর পশ্চিমে তার জন্ম, গ্রহণ করেন পবিত্র কুরআন, যা তিরিশ খন্ডে বিভক্ত। সকল সৃষ্টিকে পথ দেখাতে, সকল শাসকের অধিপতি পবিত্রজনের নেতা। আকাশ থেকে সাহায্য নিয়ে রক্ষা করেন মানবজাতির, দৈনিক পাঁচবার প্রার্থনায় নীরবে কামনা করেন শান্তি।

এক আল্লাহতে আবধ্য তার হৃদয়, গরিবের দুর্দশাকে করেন দূর, মনে দেন শান্তি ও শক্তি। পাপীর অদৃষ্টকে দেখেন, দুরাত্মা থেকে করেন মুক্তি। জগতের জন্য ক্ষমা নিয়ে চলেছেন সুদূর অতীত থেকে, মন্দকে দূর করার মহাসড়কে।তার ধর্ম পরিশুদ্ধ ও শাশ্বত সত্য, তাই মুহাম্মদ মহান ও পবিত্র’।

সম্রাট হংবুর লেখা কবিতাটির মূল পাণ্ডুলিপি আজও সযত্নে রক্ষিত আছে। এ ছাড়াও চীনের নানজিং প্রদেশের বিভিন্ন মসজিদের দেয়ালে কবিতাটি ক্যালেন্ডারের মতো বড় করে টাঙানো আছে।

১০০ শব্দে লেখা এই স্তবগাথা থেকে প্রমাণ হয় সেই সময় চীনেও ইসলামের প্রচার ও প্রসার হয়েছিল। এর প্রভাব পড়েছিল মিং সম্রাটের ওপর। ইতিহাস থেকে জানা যায়, সম্রাট হংবুর আমলেই চীনে ইসলামের পথচলা শুরু হয়েছিল।

২১ অক্টোবর ১৩২৮ তার জন্ম, মৃত্যু হয় ২৪ জুন ১৩৯৮। মধ্যযুগে মিং সম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা সম্রাট হংবু ১৩৬৮ থেকে ১৩৯৮ সাল পর্যন্ত চীন শাসন করেন। বলাবাহুল্য আজ থেকে ৬৫০ বছরেরও বেশি সময় আগে চীনে ইসলামের আগমন হয়েছিল। সম্রাট হংবুর রাজত্বকালেই চীনের বিভিন্ন অঞ্চলে মসজিদ নির্মিত হয়।

কবিতাটি পাঠ করলে স্পষ্ট বোঝা যায়, মিং সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা সম্রাট হংবু ইসলাম ধর্ম এবং শেষনবী মুহাম্মদকে (স) গভীর শ্রদ্ধা-সম্মান করতেন। এমনও শোনা যায়, রাজ্যপাটের শেষ দিকে অর্থাৎ মৃত্যুর আগে ইসলাম গ্রহণও করেছিলেন তিনি। তবে এই দাবির পক্ষে কোনো প্রামাণ্য দলিল পাওয়া যায়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *