৩ দিন পর নিহত বাংলাদেশির লাশ ফেরত দিল বিএসএফ

বাংলাদেশ ভারত

(ঝিনাইদহ, বাংলাদেশ) সীমান্তে গুলি করে হত্যার পর বাংলাদেশি গরু ব্যবসায়ী সুমনের লাশ ফেরত দিয়েছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বিএসএফ। ঝিনাইদহের মহেশপুর সীমান্তে বিএসএফ’র গুলিতে নিহত হওয়ার তিন দিন পর রোববার সন্ধ্যার দিকে তার লাশ গ্রহন করেন পরিবারের সদস্যরা । এ সময় বিজিবি’র শ্রীনাথপুর কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার কামরুল হাসান, মহেশপুর থানা পুলিশের প্রতিনিধি আওয়াল হোসেন এবং বিএসএফ’র পক্ষে পাখিউড়া ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার উপস্থিত ছিলেন। এক প্রতিবেদনে এ খবর দিয়েছে ঝিনাইদহের চোখ।

শুক্রবার (৮ নভেম্বর) ভোর ৪ টার দিকে মহেশপুর সীমান্তের লড়াইঘাট এলাকা দিয়ে ভারতের অভ্যন্তরে গরু আনতে যায় সুমন সহ কয়েকজন। গরু নিয়ে ফেরার সময় ভারতের অভ্যন্তরে শীলগেট নামক স্থানে পৌছালে পাখিউড়া ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্যরা তাদের লক্ষ করে গুলি চালায়। এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যায় সুমন। সে মহেশপুর উপজেলার শ্যামকুড় গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে।

ঘটনার ৬১ ঘন্টা পর বিকালে মহেশপুর সীমান্তের মেইন পিলার ৬০/১৩০ আর পিলারের নিকট ভারতের অভ্যন্তরে পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে বিএসএফ নিহতের লাশ হস্তান্তর করে। ঝিনাইদহ-৫৮ বিজিবি পরিচালক লে. কর্ণেল কামরুল আহসান জানান, লাশগ্রহণের পর পুলিশ ও বিজিবি’র উপস্থিতিতে লাশ নিহতের পরিবারকে বুঝিয়ে দেয়া হয়।

সীমান্ত হত্যার সংখ্যা শূন্যতে আনা এবং সীমান্তরক্ষী বাহিনীর প্রাণঘাতী অস্ত্রের ব্যবহার বন্ধের বিষয়ে বাংলাদেশ ও ভারত—দুই দেশই সম্মত হয়েছে কয়েক বছর আগে। এরপরও সেটা বন্ধ হয়নি। বরং বেড়েছে। মানবাধিকার সংস্থাগুলোর হিসাবে চলতি বছরের প্রথম ছয় মাসেই ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) গুলিতে ১৮ জন নিহত হয়েছেন। আগের বছর এই সংখ্যা ছিল ১৪।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *