গাজা ও সিরিয়ায় বিমান হামলা, ফিলিস্তিনি নেতাকে সপরিবারে হত্যা ইসরাইলের

মধ্যপ্রাচ্য লিড নিউজ

(দামেস্ক, সিরিয়া) ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকা ও সিরিয়ায় বিমান হামলা চালিয়েছে ইসরাইল। সোমবার দিবাগত মধ্যরাতে বড় আকারের এই হামলা চালানো হয়। গাজায় হামলা চালিয়ে অঞ্চলটির সশস্ত্র স্বাধীনতাকামী সংগঠন ইসলামিক জিহাদের একজন শীর্ষস্থানীয় নেতাকে সপরিবারে হত্যা করেছে দখলদার বাহিনী। আহত হয়েছে অন্তত আরও দুইজন। একই সময়ে সিরিয়ায় হামলা চালিয়ে ওই নেতার ছেলেকেও হত্যা করা হয়েছে। ইসলামিক জিহাদের পক্ষ থেকে মঙ্গলবার ওই নেতার নাম বাহা আবু আল আতা (৪২) বলে নিশ্চিত করা হয়েছে। খবর আলজাজিরার।

ফিলিস্তিনিদের ভ‚মি জবরদখল করে ১৯৪৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় ইহুদি রাষ্ট্র ইসরাইল। ১৯৬৭ সালের আরব যুদ্ধের পর থেকে ইসরাইল পূর্ব জেরুজালেম দখল করে রেখেছে। হারানো ভ‚মি ফিরে পাওয়ার চেষ্টায় আন্দোলন ও সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছে ফিলিস্তিনিরা। সেই আন্দোলনে অব্যাহত হামলা চালিয়ে যাচ্ছে তেলআবিব। ইসরাইলের পক্ষ থেকে বাহা আবু আল আতাকে লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করে গাজা উপত্যকায় বিমান হামলা চালানোর বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। ইসরাইলি বাহিনী জানিয়েছে, দেশটির প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর নির্দেশেই এ হামলা চালিয়েছে তারা। নিহত ইসলামিক জিহাদ নেতার বিরুদ্ধে ইসরাইলবিরোধী তৎপরতারও অভিযোগ এনেছে তেল আবিব।

এ সিরিজ হত্যাযজ্ঞের প্রতিশোধ নেওয়ার অঙ্গীকার করেছে ইসলামিক জিহাদ। দলটির এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, আমাদের অনিবার্য প্রতিশোধ ইহুদিবাদীদের অস্তিত্বে আঘাত হানবে। গাজা উপত্যকার ক্ষমতাসীন দল ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস বলেছে, এই উত্তেজনা বৃদ্ধির পরিণামের দায় ইসরায়েলকেই বহন করতে হবে। এই হত্যাকাণ্ডকে ছেড়ে দেওয়া হবে না বলেও হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছে দলটি।

২০১৯ সালের জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে ইসরাইলের এই অব্যাহত দখলদারিত্বের কঠোর সমালোচনা করেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়েপ এরদোগাান। তিনি বলেন, ইসরাইলের ফিলিস্তিনি ভ‚খণ্ড দখলের কোনও বৈধতা নেই। এ ইস্যুতে তুরস্কের অবস্থান স্পষ্ট। ১৯৬৭ সালের সীমান্ত পরিকল্পনা অনুযায়ী আলাদা ফিলিস্তিন রাষ্ট্র গঠন করতে হবে এবং পূর্ব জেরুজালেম তাদের রাজধানী হবে। মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদের মতে, ফিলিস্তিনি ভ‚খণ্ডে ইসরাইলি দখলদারিত্ব প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়েই দুনিয়াজুড়ে সন্ত্রাসবাদ ছড়িয়ে পড়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *