ইসলাম ও মুসলিম বিদ্বেষ রুখতে ফ্রান্সে সম্প্রীতি সমাবেশ

ইউরোপ

(প্যারিস, ফ্রান্স) বিশ্বে ইসলাম ও মুসলিমদের বিরুদ্ধে ক্রমবর্ধমান হিংসা-বিদ্বেষে ক্ষুদ্ধ ফরাসিরা। আর তাই হিংসা-বিদ্বেষ রুখতে এবার ফ্রান্সে তারা সম্প্রীতি সমাবেশ করেছে। চলতি সপ্তাহে রাজধানী প্যারিসসহ দেশের অন্যান্য বড় শহরে র‌্যালি-সমাবেশ করে প্রায় ১৪ হাজার মানুষ।

সম্প্রতি দেশটির একটি মসজিদে একজন ডানপন্থি অ্যাক্টিভিস্টের হামলা চালানোর প্রেক্ষিতে এই সম্প্রীতি সমাবেশের আয়োজন করা হয়। কয়েকটি বামপন্থি সংগঠনের উদ্যোগে আয়োজিত ইসলামোফোবিয়া বা ইসলামবিদ্বেষের বিরুদ্ধে এটাই বড় ধরনের সমাবেশ। এ খবর দিয়েছে ডয়েচে ভেলে।

খবরে বলা হয়, পশ্চিম ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি মুসলমানের বসবাস ফ্রান্সে। ২০১৭ সালের পিউ রিসার্চের এক প্রতিবেদন বলছে, দেশটির মোট জনসংখ্যার প্রায় ৯ শতাংশই মুসলমান। সংখ্যার হিসাবে তা প্রায় ৫৭ লাখ ২০ হাজার। তবে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে পশ্চিমা দেশগুলোতে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক উগ্র ইসলামপন্থি জঙ্গিদের হামলার ঘটনা ঘটছে।

এতে করে ইউরোপে থাকা সাধারণ মুসলিমরাও অকারণে নানা বিদ্বেষের স্বীকার হচ্ছেন। ইফপ নামের এক সংস্থার জরিপ বলছে, ফ্রান্সের ৪০ শতাংশের বেশি মুসলমান কোনো না কোনো সময়ে ধর্মীয় বৈষম্যের শিকার হয়েছেন। সমাবেশে অংশ নেন দেশটির অনেক মুসলিম নারী ও পুরুষ।

একটি গাড়ি কোম্পানিতে প্রকৌশলী হিসেবে কাজ করা ২৯ বছর বয়সী নারী আসমা ইউমোসিদও সমাবেশে অংশ নিয়েছিলেন। তিনি বলেন, ইসলাম নিয়ে এখানকার মুসলিম নারীদের সম্পর্কে ইদানীং অনেক বাজে কথা শোনা যায়।

নাদজেত ফেলা নামের এক নার্স বলছেন, তিনি আলজেরিয়ায় নেকাব পরার চাপের বিরুদ্ধে প্রতিবাদে অংশ নিয়েছেন। রোববারের সমাবেশেও তিনি ছিলেন। ফেলা বলেন, আমি ব্যক্তিগতভাবে নেকাব না পরার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। কিন্তু যারা এটা পরেন তাদের আলাদা করে দেখার বিষয়টি আমাকে আহত করে। প্যারিসের পাশাপাশি মার্সেই শহরেও বিক্ষোভের আয়োজন করা হয়েছিল। সেখানে কয়েকশ’ মানুষ অংশ নেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *