লেজার বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা তৈরি করছে ইরান

মধ্যপ্রাচ্য

(তেহরান, ইরান) ইলেক্টোম্যাগনেটিক লেজার বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা তৈরি করেছে ইরান। দেশটির উপ-প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেনারেল কাশেম তকিজাদেহ বলেছেন, ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্রের পাল্লা বাড়াতে এবং একে আরও নিখুঁতভাবে লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানার জন্য সক্ষম করে তুলতে লেজার বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা তৈরি করা হচ্ছে। শনিবার এক বিবৃতিতে এসব কথা বলেন জেনারেল তকিজাদেহ। তিনি বলেন, ‌’আমরা লেজার বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার প্রযুক্তি অর্জন করেছি এবং সেগুলো ছোট ছোট বিমান ও চতুর্ভুজ ড্রোনে ব্যবহার করা হবে।’

ইরানি সংবাদ মাধ্যম তাসনিম নিউজ এজেন্সি জানিয়েছে, ইরানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় আকাশ প্রতিরক্ষায় বিপুলভাবে লেজার কামান তৈরির উদ্যোগ নিয়েছে। জেনারেল তাকিযাদেহ জানান, এ লেজার কামানের প্রযুক্তি অর্জনের পেছনে কাজ করেছে শত্রুপক্ষের ড্রোন ও ছোট ছোট আকাশযানের হুমকি থেকে দেশকে নিরাপদ রাখার বিষয়টি।

গবেষণাগারে সফলভাবে এ প্রযুক্তির পরীক্ষা চালানোর পরিপ্রেক্ষিতে ইরান আকাশ প্রতিরক্ষায় এ প্রযুক্তি মোতায়েন করার জন্য লেজার কামানের গণহারে উৎপাদনের উদ্যোগ নিচ্ছে বলে জানান তাকিযাদেহ। এর আগে আগস্টে ইরান নিঃশব্দে চলা সামরিক আকাশযানের প্রতিরক্ষায় লেজার বিম ব্যবহার করে কামান তৈরির পরিকল্পনার কথা জানায়।

ইরানের সামরিক কর্মকর্তারা জানিয়েছিলেন, দেশটির কৌশলগত গুরুত্বপূর্ণ স্থানের আকাশ সুরক্ষার জন্য তারা এ প্রযুক্তির ব্যবহার করবে। জেনারেল তকিজাদেহ বলেন, এর ইমধ্যে এ ব্যবস্থার উপর পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালানো হয়েছে এবং এখন উৎপাদন করা হচ্ছে। এর পাশাপাশি নতুন ম্যাপিং এবং ডিজিটাল সিস্টেম ব্যবহার করা হবে যার ফলে ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্রের পাল্লা এবং নিখুঁত হামলার সক্ষমতা বাড়বে।

ইরানের ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র সক্ষমতা সম্পর্কিত এক প্রশ্নের জবাবে জেনারেল তকিজাদেহ বলেন, ভূমি থেকে ভূমিতে নিক্ষেপযোগ্য প্রায় সবধরনের ক্ষেপণাস্ত্রের আধুনিকায়ন সম্পন্ন হয়েছে এবং সমস্ত ক্ষেপণাস্ত্র একেবারে নির্ভুলভাবে লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে পারে। ইরানের উপ-প্রতিরক্ষামন্ত্রী আরও জানান, তার দেশের কাহের এফ-৩১৩ মডেলের জঙ্গিবিমানের ওপর পরীক্ষা-নিরীক্ষা অব্যাহত রয়েছে। ২০১৩ সালে ইরান কাহের বিমান নির্মাণের প্রকল্প উন্মোচন করে এবং ২০১৭ সালের ১৫ এপ্রিল এ বিমান পরিচালনার নিয়ে পরীক্ষা করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *