বেশি কথা বললে জাকির নায়েকের পরিণতি হবে ওয়াইসির: বিজেপি মন্ত্রী

ভারত লিড নিউজ

(নয়াদিল্লি, ভারত) ক্ষমতাসীন বিজেপির কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় বলেছেন, অল ইন্ডিয়া মজলিস-ই-ইত্তেহাদুল মুসলিমিন প্রধান আসাদউদ্দিন ওয়াইসি ভারতের দ্বিতীয় জাকির নায়েক হয়ে উঠতে চলেছেন। শনিবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে এই মন্তব্যই করেন আসানসোলের বিজেপি সাংসদ। বেশি কথা বললে প্রয়োজনে আসাদউদ্দিন ওয়াইসির বিরুদ্ধে ভারতীয় আইন অনুযায়ী কেন্দ্রীয় সরকার ব্যবস্থা নেবে বলেও হুমকি দেন তিনি।

নভেম্বরের ৯ তারিখ সুপ্রিম কোর্ট বাবরি মসজিদ মামলার রয়ে মসজিদের জমিতে মন্দির তৈরিতে শিলমোহর দিয়ে অযোধ্যার অন্য পাঁচ একর জমিতে মসজিদ তৈরির অনুমতি দিয়েছে। তবে ওই পাঁচ একর জমি নিয়ে বিভিন্ন মুসলিম নেতারা বিরোধিতার পাশাপাশি আসাদুদ্দিন ওয়েইসিও অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

সুপ্রিম কোর্টেরে রায়ের সমালোচনা করে শুরু থেকেই কথা বলে আসছেন ওয়াইসি। তারই ধারাবাহিকতায় শুক্রবার জাতীয় একটি সংবাদ মাধ্যামকে দেয়া সাক্ষাত্‍কারে রায়ের সমালোচনা করেন তিনি। বলেন, ‘যা কিছু ভারতের সংবিধান এবং বহুত্ববাদের বিরোধিতা করে তার বিরোধিতা আমি করবই। আমার জন্য সংবিধানই শেষ কথা। সংবিধানই আমাকে সেই অধিকার দিয়েছে যেখান থেকে শ্রদ্ধার সঙ্গে আমি সুপ্রিম কোর্টের রায়ের বিরোধিতা করতে পারি। যা সংবিধানের বিরুদ্ধ তার বিরোধিতা আমি করবই।’

ওয়াইসি আরও বলেন, ‘আমাদের যুদ্ধ একটুকরো জমির জন্য নয়। আমরা আইনি অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য এই লড়াই করছি। সুপ্রিম কোর্ট তার রায়ে পরিষ্কার বলেছে যে মন্দির ভেঙে মসজিদ তৈরি করা হয়নি। তাই আমি আমার মসজিদ ফেরত চাই।’

শনিবার তার এই মন্তব্যের তীব্র সমালোচনা করেন বাবুল। বলেন, ‘এআইএমআইএম প্রধান দ্বিতীয় জাকির নায়েক হতে চলেছেন। অযোধ্যার জমি নিয়ে সুপ্রিম কোর্ট যে নির্দেশ দিয়েছে তার সমালোচনায় লাগাতার বিতর্কিত মন্তব্য করছেন। এই তিনি যদি আরও বেশি কথা বলেন তা হলে তাকে চুপ করানোর আইন কেন্দ্রের কাছে আছে। ভবিষ্যতে দেশের সেই আইন অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

@ANI

Union Minister Babul Supriyo in West Bengal: Asaduddin Owaisi is becoming second Zakir Naik. If he speaks more than required, then we do have law and order in our country.

সংবাদ প্রতিদিন জানিয়েছে, সুপ্রিম কোর্টের রায় নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করার জেরে ইতিমধ্যেই মামলা দায়ের হয়েছে এআইএমআইএম প্রধান ওয়াইসির নামে। তদন্তও শুরু হয়েছে। এখন দেখার কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়র হুঁশিয়ারির পর হায়দরাবাদের সাংসদ ওয়েইসির বিরুদ্ধে কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করে কেন্দ্র।

ইসলাম ও তুলনামূলক ধর্মীয় তত্ত্ব নিয়ে বক্তব্যের জন্য ২০১৬ সালে তীব্র আলোচনা-সমালোচনার মুখে পড়েন জাকির নায়েক। সে সময় তার বিরুদ্ধে অর্থ পাচার ও উগ্রপন্থাকে উসকে দেয়ার অভিযোগ তুলেছিল ক্ষমতাসীন দল ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)। একই অভিযোগে তার বিরুদ্ধে মামলাও হয়। বন্ধ করে দেয়া হয় তার প্রতিষ্ঠিত ইসলামিক রিসার্চ ফাউন্ডেশনসহ (আইআরএফ) ও পিস টিভি।

অভিযোগ ওঠার পর ২০১৬ সালের ১ জুলাই ভারত ছেড়ে যেতে বাধ্য হন জাকির নায়েক। ভারতে মামলা হওয়ার পর জাকির নায়েক মালয়েশিয়ায় আশ্রয় চাইলে তাকে স্থায়ীভাবে বসবাসের অনুমতি দেয় তৎকালীন নাজিব রাজাক সরকার। এরপর থেকে তিনি মালয়েশিয়ার পুত্রজায়া শহরে বসবাস করে আসছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *