ঘুষ-দুর্নীতির তিন মামলায় নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন

মধ্যপ্রাচ্য লিড নিউজ

(তেলআবিব, ইসরাইল) ঘুষ গ্রহণ, দুর্নীতি, প্রতারণা ও বিশ্বাসভঙ্গের অপরাধে অভিযুক্ত হয়েছেন ইসরাইলের ক্ষমতাসীন প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু। বৃহস্পতিবার তিন দুর্নীতির মামলায় তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের ঘোষণা দেন দেশটির অ্যাটর্নি জেনারেল। মামলা তিনটি কেস ৪০০০, কেস ২০০০ ও কেস ১০০০ নামে পরিচিত।

ইসরাইলের ইতিহাসে এই প্রথম ক্ষমতাসীন কোনো প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ঘুষ গ্রহণের আনুষ্ঠানিক অভিযোগ আনা হল। তবে বরাবরের মতোই ঘুষ ও দুর্নীতির এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন নেতানিয়াহু। অ্যাটর্নি জেনারেলের চার্জশীটকে ‘অভুত্থ্যান প্রচেষ্টা’ অভিহিত করে ক্ষমতা না ছাড়ার ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। তিনি বলেন, ‘আমি দেশকে নেতৃত্ব দিয়ে যাব। আইন তাই বলে।’ খবর আলজাজিরা ও এএফপির।

এর আগে নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে দুইটি দুর্নীতির মামলায় কয়েক মাসের তদন্তের পর গত ফেব্রুয়ারিতে তাকে অভিযুক্ত করার সুপারিশ করে পুলিশ। অক্টোবর মাসে নেতানিয়াহুর আইনজীবী দলের সঙ্গে চার দিনব্যাপি শুনানি ও আলোচনা করেন অ্যাটর্নি জেনারেল আভিচাই মেন্ডেলব্লিট। এপরপর এই অভিযোগ দায়ের করেন তিনি।

বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগগুলো নিয়ে অ্যাটর্নি জেনারেল জানান, ভারাক্রান্ত হƒদয় নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে এই অভিযোগ এনেছেন তিনি। তিনি বলেন, ‘এটা কোনো বামপন্থি বা ডানপন্থি রাজনীতির ব্যাপার নয়। এক্ষেত্রে আইনপ্রয়োগও ইচ্ছাধীন কোনো বিষয় নয়।’ আরও বলেন, নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে অভিযোগগুলো বিস্তৃত প্রমাণ ও সাক্ষ্যের ওপর ভিত্তি করে পরিচালনা করা হয়েছে। সবকিছুই পেশাদারভাবে পর্যালোচনা করা হয়েছে। কোনো প্রচেষ্টা বাদ রাখা হয়নি।

নিজের বিরুদ্ধে আনা সকল অভিযোগ অস্বীকার করেছেন নেতানিয়াহু। এক বিবৃতিতে অভিযোগ গঠনের পদক্ষেপকে তার বিরুদ্ধে ‘অভ্যুত্থানের অপচেষ্টা’ বলে আখ্যায়িত করেছেন তিনি। তিনি আরও বলেন, কর্তৃপক্ষ আসলে সত্য উদঘাটনে ইচ্ছুক নয়, তারা আমার পেছনে লেগেছে।

অভিযোগ গঠনকে সমর্থন জানিয়েছে নেতানিয়াহুর রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী কাহল লাভান গান্টেজ। বলেছেন, অ্যাটর্নি জেনারেল আভিচাই মেন্ডেলব্লিট নেতৃত্বাধীন বিচার ব্যবস্থার ওপর পূর্ণ বিশ্বাস রয়েছে তার। তিনি আরও বলেন, ইসরাইলে কোনো সরকারের বিরুদ্ধে অভ্যুত্থান হচ্ছে না। এখানে ক্ষমতার পরিখা খনন করা হচ্ছে। নেতানিয়াহু আজ প্রমাণ করেছেন যে, তাকে তার পদ ছাড়তে হবে। নিজের আইনি দুর্দশার দিকে নজর দিতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *