১১ দফা দাবিতে ধর্মঘটের ডাক নৌ শ্রমিকদের

বাংলাদেশ

(ঢাকা, বাংলাদেশ) এগার দফা দাবিতে ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে নৌ শ্রমিকরা। শুক্রবার মধ্য রাত থেকে এই ধর্মঘটের  ডাক দেয় বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক ফেডারেশন। দাবি না মানলে এই আন্দোলন অনির্দিষ্টকালের জন্য চলবে বলে জানিয়েছেন শ্রমিক নেতারা।  তারা বলেছেন, শ্রম মন্ত্রণালয়ের আশ্বাসে বারবার আন্দোলন প্রত্যাহার করা হচ্ছে। অথচ নৌযান মালিকরা বারবার প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করছেন। দাবি মানার জন্য সর্বশেষ ২৯শে নভেম্বর পর্যন্ত সময় বেঁধে দেয়া হয়েছিল।

শ্রমিকদের দাবি হচ্ছে, ক্ষতিপূরণ প্রদান, সামাজিক নিরাপত্তা, সব ধরনের শ্রমিক হয়রানি বন্ধ, নৌপথে চাঁদাবাজি বন্ধ, ২০১৬ সালে ঘোষিত গেজেট অনুযায়ী নৌযানের সর্বস্তরের শ্রমিকদের বেতন প্রদান, ভারতগামী শ্রমিকদের ল্যান্ডিং পাস প্রদান, মালিক কর্তৃক খাদ্য ভাতা প্রদান, নৌযান শ্রমিকদের সমুদ্র ও রাত্রিকালিন ভাতা নির্ধারণ, কর্মস্থলে দুঘটনায় নিহত শ্রমিকদের ১০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ নির্ধারণ।

নৌযান শ্রমিক নেতারা জানিয়েছেন, শ্রমিকদের এই আন্দোলন নতুন কিছু নয়। এর আগেও কয়েকবার আন্দোলন করেছে শ্রমিকরা। প্রতিবারই শ্রম মন্ত্রণালয় থেকে দাবি মেনে নেয়ার আশ্বাস দেয়া হয়। মন্ত্রণালয়ের আশ্বাসেই আন্দোলন অন্তত তিনবার প্রত্যাহার করা হয়েছে। লঞ্চ মালিকরা ২/১টি দাবি মানলেও অধিকাংশ দাবি তারা পূরণ করেননি। তাই শ্রমিকরা এখন তাদের দাবি না মানা পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাবে। শুক্রবার মধ্যরাত থেকেই তারা আন্দোলনে যাবে।

নৌযান শ্রমিক ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি শাহ আলম ভূঁইয়া বলেন, আগে থেকে ঘোষণা দেয়া হয়েছে তাই আমি আশা করছি শতভাগ শ্রমিক নিজ দায়িত্বে স্বপ্রনোদিতভাবে এই আন্দোলনে অংশগ্রহণ করবে। শ্রমিকরা কর্মবিরতি পালন করবে তাই সারা দেশে লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকবে। তিনি বলেন, এক বছর ধরে তিনবার ধর্মঘট পালন করেছি। তিনবার সিদ্ধান্ত হয়েছে, চুক্তি হয়েছে। গত এক মাস ধরে আবার বিক্ষোভ, মিছিল করা হয়েছে। বিভিন্ন দপ্তরে চিঠি দেয়া হয়েছে। এর আগে শত শত শ্রমিক ঢাকায় বিক্ষোভ করেছে যাতে যাত্রীদের দুর্ভোগ-ভোগান্তিতে পড়তে না হয়। কিন্তু কোনো লাভ হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *