অভিশংসন শুনানিতে অংশ নিতে অস্বীকার করেছেন ট্রাম্প

আমেরিকা লিড নিউজ

(ওয়াশিংটন, যুক্তরাষ্ট্র) কংগ্রেসের প্রতিনিধি পরিষদে অভিশংসন শুনানিতে অস্বীকার করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। নিজের কোনো প্রতিনিধি কিম্বা কোনো আইনজীবীও শুনানিতে হাজির হবেন না বলে জানিয়েছেন। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের পক্ষে রোববার এক চিঠিতে হাউস জুডিশিয়ারি কমিটিকে এ কথা জানিয়ে দিয়েছে হোয়াইট হাউস। ট্রাম্প শিবিরের দাবি, অভিশংসন তদন্ত প্রক্রিয়ায় ‌’স্বচ্ছতার অভাব’ রয়েছে। আগামী বুধবার এ শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে। এ শুনানিতে নিজে কিংবা কোনো প্রতিনিধির মাধ্যমে উপস্থিত থাকবেন কিনা তা জানাতে ট্রাম্পকে ১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় বেধেঁ দেয়া হয়েছিল। খবর বিবিসি ও আলজাজিরার।

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিশংসন তদন্ত রিপোর্ট তৈরির শেষ পর্যায়ে রয়েছে কংগ্রেসের হাউস ইনটেলিজেন্স কমিটি। কমিটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, চলতি সপ্তাহেই হাউস জুডিশিয়ারি কমিটির নিকট তদন্ত রিপোর্টটি তুলে দেয়া হবে। প্রায় তিন সপ্তাহ ধরে নেয়া মার্কিন কর্মকর্তাদের সাক্ষ্যের ভিত্তিতে রিপোর্টে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ঘুষ প্রদান ও যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধান লঙ্ঘনের অভিযোগ আনা হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। তবে রিপোর্ট পাওয়ার পর প্রকৃত অভিযোগপত্র প্রস্তুত করবে জুডিশিয়ারি কমিটি।

জুডিশিয়ারি কমিটির প্রথম বৈঠকটি আগামী বুধবার নির্ধারণ করা হয়েছে। বৈঠকে মার্কিন সংবিধানে অভিংশসন সম্পর্কিত আইন পর্যালোচনা করতে উপস্থিত থাকবেন চার আইন বিশেষজ্ঞ। বৈঠকের শুনানিতে হোয়াইট হাউসকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। কিন্তু সেই আমন্ত্রণ ফিরিয়ে দিয়ে হোয়াইট হাউসের কাউন্সেল প্যাট সিপোলোনে প্রতিনিধি পরিষদের বিচার বিভাগীয় কমিটির কাছে লেখা এক চিঠিতে প্রথম শুনানিতে ট্রাম্প অংশ নিচ্ছেন না বলে নিশ্চিত করেছেন। সিপোলোনে বলেছেন, শুনানিতে ‘ন্যায্যভাবে’ অংশ নিতে পারবেন বলে ট্রাম্প মনে করছেন না।

প্রতিনিধি পরিষদের বিচার বিভাগীয় কমিটির ডেমোক্রেট চেয়ারম্যান জেরল্ড নেডলার গত সপ্তাহে ট্রাম্পকে শুনানিতে আমন্ত্রণ জানিয়ে বলেছিলেন, হয় ট্রাম্প অংশ নেবেন, না হলে অভিশংসন প্রক্রিয়া নিয়ে অভিযোগ জানানো বন্ধ করবেন। বিচার বিভাগীয় এ কমিটি তিনজন

ইউক্রেইনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জিলেনস্কির সঙ্গে ট্রাম্পের ফোনালাপের সূত্র ধরে যে অভিশংসন তদন্ত শুরু হয়েছিল, বুধবার প্রতিনিধি পরিষদে বিচারবিভাগীয় কমিটির শুনানির মধ্য দিয়ে তা নতুন ধাপে উন্নীত হতে যাচ্ছে। জুলাইয়ের ওই ফোনালাপে ট্রাম্প ইউক্রেইনের প্রেসিডেন্টকে সাবেক মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও তার ছেলে হান্টারের দুর্নীতি অনুসন্ধান করতে বলেছিলেন। আগামী বছরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্রেট পার্টির মনোনয়নপ্রত্যাশীদের মধ্যে বাইডেন এগিয়ে আছেন বলে বিভিন্ন জনমত জরিপে দেখা গেছে। তার ছেলে হান্টার এক সময় ইউক্রেইনের জ্বালানি কোম্পানি বুরিসমার হয়ে কাজ করতেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *