মার্কিন সেনা বহিস্কারে প্রস্তাব পাস: ইরাকের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের হুমকি ট্রাম্পের

আমেরিকা মধ্যপ্রাচ্য

ওয়াশিংটন, যুক্তরাষ্ট্র- ইরাক থেকে মার্কিন সেনা বহিস্কারের প্রস্তাব পার্লামেন্টে পাস হওয়ার পর ইরাকের বিরুদ্ধে কঠোর অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপের হুমকি দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। রোববার ইরাকের পার্লামেন্ট মার্কিন ও অন্যান্য বিদেশী সেনাদের দেশ থেকে বের হয়ে যাওয়ার নির্দেশ সম্বলিত একটি প্রস্তাবনা পাস করার পরই বাগদাদের প্রতি হুমকি দেন তিনি।

ইরানের কুদস ফোর্সের কমান্ডার জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে হত্যার পর মধ্যপ্রাচ্য উত্তেজনায় ফুটছে। ক্ষোভে ফুঁসছে ইরান। তারা প্রতিশোধের নেয়ার হুমকি দিয়েছে। ওদিকে সোলাইমানিকে হত্যার জন্য ট্রাম্প প্রশাসন যেসব যুক্তি দেখাচ্ছে, তা নিয়েও নানা সমালোচনা হয়েছে। সোলাইমানি হত্যার ঘটনায় ক্ষুব্ধ ইরাকি জনতা মার্কিন সেনা বহিষ্কারের জন্য সরকারকে চাপ দিচ্ছে। রোববার এ নিয়ে ইরাকি পার্লামেন্টে ভোটাভুটি হয়।  

ট্রাম্প বলেছেন,  ‘ইরাক যদি যুক্তরাষ্ট্রের সেনাদের চলে যেতে বলে এবং তা বন্ধুত্বপূর্ণ পরিবেশে না ঘটে, তাহলে আমরা তাদের বিরুদ্ধে অবরোধ দেব। এমন অবরোধ দেবো যা তারা আগে কখনো দেখে নি। এই অবরোধ হবে ইরানের বিরুদ্ধে দেয়া অবরোধের চেয়েও কড়া। আমাদের অত্যন্ত ব্যয়বহুল ব্যতিক্রমী বিমানঘাঁটি আছে সেখানে। তা নির্মাণ করতে আমাদের শত শত কোটি ডলার খরচ হয়েছে। এর বিনিময় না দেয়া পর্যন্ত আমরা সেখান থেকে ফিরব না।’

ট্রাম্পের এমন বক্তব্যে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ইউনিভার্সিটি অব ডেনভারের সেন্টার ফর মিডল ইস্ট স্টাডিজের পরিচালক নাদের হাশেমি। তিনি বলেছেন, তিনি সেই ব্যক্তি, যিনি যুদ্ধবাজদের দ্বারা পুরোপুরি পরিবেষ্টিত, অহমিকা দ্বারা পরিচালিত এবং পুনঃনির্বাচনী প্রচারণায় রয়েছেন। আমার মনে হয় তার এমন কঠোর কথাবার্তায় দেশের ভিতর তার ভিত মজবুত হবে।

ইরাকের আইনশৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে ও আইএসকে ঠেকাতে ইরাকের সেনাদের সহযোগিতায় পাঁচ হাজার দু’শ মার্কির সৈন্য রয়েছে বলে জানা গেছে৷ ২০০৩ সালে ইরাক যুদ্ধের পর থেকেই মধ্যপ্রাচ্যের এ দেশটিতে মার্কিন সেনাদের উপস্থিতি রয়েছে৷ এদিকে তেহরানের সাথেও দেশটির বর্তমান সরকারের কৌশলগত সম্পর্ক আছে৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *