ইরাকে মার্কিন ঘাঁটিতে ২২টি ক্ষেপণাস্ত্র মেরেছে ইরান

আমেরিকা মধ্যপ্রাচ্য

তেহরান, ইরান- ইরাকের আনবার প্রদেশে দুটি মার্কিন ঘাঁটিতে সর্বমোট ২২টি মিসাইল নিক্ষেপ করেছে ইরান। বুধবার ভোরে (মঙ্গলবার মধ্যরাতের পর) মার্কিন সামরিক ঘাঁটি ‘আইন আল-আসাদ’ ও ইরবিল ঘাঁটিতে আঘাত হানে ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ড কর্পস (আইআরজিসি)। এর মধ্যে শুধু আল আসাদ ঘাঁটিতেই ১৭ টি মিসাইল নিক্ষেপ করা হয়। দুটি মিসাইল বিস্ফোরিত হয়নি। ইরবিলে যে পাঁচটি ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানো হয়েছে তার সবগুলো লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত করে।

ইরাকের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে বলা হয়, ইরবিল প্রদেশের সিদান গ্রামে ইরানের ছোড়া দুটি ক্ষেপণাস্ত্র আঘাত হানে এবং ডোহুক প্রদেশের বারদাহ রাশশ জেলায় তৃতীয়টি আঘাত হানে। ইরবিল শহর থেকে ১৬ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে সিদান অবস্থিত, অন্যদিকে ৪৭ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিতি বারদাহ রাশশ।

ইরাকের সামরিক বাহিনী জানিয়েছে ইরবিলে ঘাটি লক্ষ্য করে পাঁচটি ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়, যেখানে মার্কিন নেতৃত্বাধীন যৌথ বাহিনী মোতায়েন করা রয়েছে। আইআরজিসি বুধবার ভোররাতে এক বিবৃতিতে বলেছে, লে. জেনারেল কাসেম সোলাইমানির উপর আগ্রাসী মার্কিন সেনাদের সন্ত্রাসী ও অপরাধমূলক হামলার কঠোর জবাব দিতে আইন আল-আসাদ ঘাঁটিকে মাটির সঙ্গে মিশিয়ে দেয়া হয়েছে। এতে ৮০ মার্কিন সেনা ও আরও দুই শতাধিক আহত হয়েছে।

অভিযানটির নাম দেয়া হয় ‘শহীদ সোলাইমানি’ এবং এই অভিযানের মাধ্যমে যে ‘বিজয়’ অর্জিত হয়েছে বলে আইআরজিসির বিবৃতিতে দাবি করে ইরানের মুসলিম জাতিকে অভিনন্দন জানানো হয়েছে। আইআরজিসির বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, জেনারেল সোলাইমানিকে হত্যার কাপুরুষোচিত পদক্ষেপের ‘কঠোর প্রতিশোধ’ নেয়ার প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন শুরু হয়েছে।

মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তর পেন্টাগন বলেছে, তাদের ঘাঁটিতে এক ডজনেরও বেশি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র আঘাত হেনেছে। এ ছাড়া, ইরাকের উত্তরাঞ্চলীয় ইরবিল শহরের মার্কিন ঘাঁটিতেও ক্ষেপণাস্ত্র আঘাত হেনেছে বলে পেন্টাগন নিশ্চিত করেছে। ইরবিল বিমানবন্দরের কাছে অবস্থিত একটি মার্কিন ঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পর ওই বিমানবন্দরের ফ্লাইট ওঠানামা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *