করোনার চেয়ে তালেবান হামলায় বেশি মানুষ মরছে

পূর্ব এশিয়া লিড নিউজ

কাবুল- আফগানিস্তানে করোনার চেয়ে তালেবান হামলায় বেশি মানুষ মারা যাচ্ছে। পবিত্র রমজানের শুরু থেকে বিদ্রোহী গোষ্ঠীটির হামলায় নিহত হয়েছে ১২০ বেসামরিক নাগরিক। আর গত তিন মাসে করোনায় মারা গেছে মাত্র ১৬৮ জন। আফগান সংবাদমাধ্যম তোলো নিউজ এ খবর জানিয়েছে।  

আফগানিস্তানে দেশটিতে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি প্রথম করোনার রোগী ধরা পড়ে। এ পর্যন্ত ৬ হাজার ৪০২ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। বিপরীতে চলতি সপ্তাহেই তালেবান হামলায় অন্তত ৪০ জন নিহত হয়েছে। পর পর দুটো হামলার ঘটনা ঘটে। প্রথমে রাজধানী কাবুলের একটি হাসপাতালে বন্দুকধারীদের হামলা ও নানগারহার প্রদেশে এক পুলিশ কমান্ডারের শেষকৃত্যে আত্মঘাতী বোমা হামলা চালানো হয়।

আরও পড়ুন:

তালেবানের বিরুদ্ধে অভিযান শুরুর নির্দেশ

ভেনিজুয়েলায় তেল পাঠাচ্ছে ইরান, পাহারায় ক্ষেপণাস্ত্রবাহী নৌকা

পশ্চিম তীর নিয়ে ইসরাইলকে ‘বড় সংঘাতের’ হুশিয়ারি

মঙ্গলবার পুলিশের ছদ্মবেশে আসা বন্দুকধারীরা রাজধানী কাবুলের একটি হাসপাতালে হামলা চালায়। এতে আন্তর্জাতিক দাতব্য সংস্থা ডক্টরস উইদাউট বর্ডার পরিচালিত একটি মাতৃসদনে দুই নবজাতকসহ ১৬ জন নিহত হন।

একই দিন পূর্বাঞ্চলীয় নানগাহার প্রদেশে পৃথক আরেকটি হামলার ঘটনা ঘটে। এখানে এক পুলিশ কমান্ডারের জানাজায় আত্মঘাতী বোমা হামলায় অন্তত ২৪ জন নিহত ও ৬৮ জন আহত হন। এই জানাজায় সরকারি কর্মকর্তারা ও পার্লামেন্টের এক সদস্য উপস্থিত ছিলেন। এই হামলার দায় স্বীকার করেনি কোনো গোষ্ঠীই। তবে তালেবানকেই দায়ী করছে আফগান কর্তৃপক্ষ।

এসব হামলার পর এক টেলিভিশন ভাষণে আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি বলেন, ‘আজ আমরা কাবুলের একটি হাসপাতাল ও নাঙ্গাহারের একটি শেষকৃত্যে তালেবান ও দায়েশ (আইএস’কে এই নামে অভিহিত করে পশ্চিমা দেশ ও তার মিত্ররা) গোষ্ঠীর সন্ত্রাসী হামলা প্রত্যক্ষ করেছি।’

সেনাবাহিনীকে পাল্টা হামলা চালানোর নির্দেশ দিয়ে তিনি বলেন, ‘দেশ, দেশের মানুষ ও অবকাঠামোর সুরক্ষা এবং তালেবান ও অন্যসব সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর হামলা ও হুমকি প্রতিরোধ করতে পাল্টা অভিযান প্রয়োজন।’

আফগানিস্তানের প্রায় ১৯ বছরের দীর্ঘ যুদ্ধ অবসানে গত ফেব্রুয়ারিতে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর করেছে দেশটির বিদ্রোহী গোষ্ঠী তালেবান। কাতারের দোহায় স্বাক্ষরিত ওই চুক্তিতে তালেবান ও আফগান সরকারের মধ্যে আলোচনার শর্ত দেওয়া হয়েছে। তবে বন্দি বিনিময় নিয়ে মতবিরোধে সেই আলোচনা শুরু হয়নি। এর মধ্যে হামলার জেরে তালেবান বিরোধী অভিযান শুরুর নির্দেশ এসেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *