আর লকডাউন হবে না যুক্তরাষ্ট্র : ট্রাম্প

আমেরিকা লিড নিউজ

ওয়াশিংটন ডিসি- করোনায় আর লকডাউন হবে না যুক্তরাষ্ট্র। জানিয়ে দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। বুধবার মার্কিন সংবাদমাধ্যম ফক্স নিউজকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে ট্রাম্প এমনটিই বলেন।

যুক্তরাষ্ট্রে নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে ২৬ হাজারের বেশি। মারা গেছে ৮০৯ জন। তবে তাতে কোন ভয় নেই ট্রাম্প প্রশাসনের। দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, করোনা সংক্রমণ বাড়লেও আর লকডাউনে যাবে না যুক্তরাষ্ট্র।

বুধবার (১৭ জুন) ফক্স নিউজ চ্যানেলকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, আমরা আর দেশ বন্ধ ঘোষণা করব না (লকডাউন)। আমাদের এটা করার দরকারও হবে না।

সম্প্রতি হোয়াইট হাউসের অর্থনীতিবিষয়ক উপদেষ্টা ল্যারি কুদলো ও কোষাগার সচিব স্টিভেন এমনুচিন বলেছেন, হয়তো আর অর্থনীতি শাটডাউন করবে না যুক্তরাষ্ট্র। তাদের এ মন্তব্যের পর এবার লকডাউনে ‘না’ করে দিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে গত মার্চে লকডাউন ঘোষণা করে যুক্তরাষ্ট্র। এতে বন্ধ হয়ে যায় অসংখ্য প্রতিষ্ঠান। বেকার হয়ে যান কয়েক কোটি মানুষ। এতে বেকায়দায় পড়েছে ট্রাম্প প্রশাসন। করোনা মহামারি নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতা, অর্থনৈতিক সংকট, সবশেষ জর্জ ফ্লয়েড হত্যাকাণ্ডের জেরে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের জনপ্রিয়তায় রীতিমতো ধস নেমেছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স ও বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান ইপসস পরিচালিত জরিপে দেখা গেছে, মার্কিনিদের কাছে গ্রহণযোগ্যতার মাপকাঠিতে ট্রাম্পের চেয়ে ১৩ পয়েন্টে এগিয়ে গেছেন বাইডেন, যা চলতি বছরে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ। ফলে লকডাউনের ঝুঁকি আর নিতে চান না প্রেসিডেন্ট।

লকডাউন তুলে নেয়ার পর যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্যে ব্যবসাপাতি খুলছে। এমন পরিস্থিতিতে প্রতিদিনই দেশটিতে প্রায় ২০ হাজার করে মানুষ করোনায় আক্রান্ত হচ্ছে। কিছু কিছু অঙ্গরাজ্যের অবস্থা তো আরও খারাপ। এসব রাজ্যে মহামারি শুরু হওয়ার এই প্রথম সর্বোচ্চ সংক্রমণের খবর পাওয়া যাচ্ছে।

করোনাভাইরাসের কারণে এমনিতেই অর্থনীতি ভেঙে পড়েছে। আর নভেম্বরে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। এমন পরিস্থিতিতে কোনোভাবেই আর লকডাউন দিতে রাজি নয় ট্রাম্প প্রশাসন। তবে ফেডারেল রিজার্ভের প্রধান জেরোমি পাওয়েল বলেছেন, মহামারি নিয়ে ‘উল্লেখযোগ্য অনিশ্চিয়তা’ যতদিন পর্যন্ত থাকবে ততদিন পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতি স্বাভাবিক হবে না।

আরও পড়ুন

[পুলিশ সংস্কারে নির্বাহী আদেশ স্বাক্ষর ট্রাম্পের]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *