সার্টিফিকেট ফেলে দেয়ায় বাড়ি মালিকের শাস্তির দাবি

বাংলাদেশ লিড নিউজ

ইমামুল কবির, ঢাকা- শিক্ষার্থীদের সার্টিফিকেট ফেলায় বাড়ির মালিকের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন হয়েছে। সোমবার (৬ জুলাই) সকালে ঢাকা কলেজের মেইন গেটের সামনে মানববন্ধন করে কলেজ শিক্ষার্থীরা। এ সময় বাড়ির মালিক মুজিবুল হক ওরফে কাঞ্চন মিয়ার দৃষ্টান্ত শাস্তি দাবি করে তারা।

এদিকে শিক্ষার্থীদের সার্টিফিকেটসহ বিভিন্ন মূল্যবান মালামাল ময়লার ভাগাড়ে ফেলে দেয়া ছাত্রাবাসের তত্ত্বাবধায়ককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গত বৃহস্পতিবার খোরশেদ আলম নামের ওই তত্ত্বাবধায়ককে গ্রেপ্তারের পর শুক্রবার এক শিক্ষার্থীর দায়ের করা মামলায় তাকে আদালতে পাঠিয়ে রিমান্ড চাওয়া হয়। পরে তাকে একদিন রিমান্ড দিয়ে জেল হাজতে পাঠিয়েছে আদালত।

রাজধানীর কলাবাগান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পরিতোষ কুমার বলেন, রুবী ভবনের মালিক মুজিবুল হক ওরফে কাঞ্চন মিয়া পলাতক আছে। তাকে গ্রেপ্তার করার জন্য অভিযান অব্যাহত আছে। কয়েক মাসের ভাড়া বাকি পড়ায় বাড়ির ভাড়াটে শিক্ষার্থীদের সার্টিফিকেট, এডমিট কার্ড, ল্যাপটপ ও পোশাকসহ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র বিনা নোটিশে ময়লার গাড়িতে ফেলে দেন বাড়ির মালিক।

ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী মো: ইমামুল কবির বলেন, একজন শিক্ষার্থীর সারাজীবনের অর্জন তার সার্টিফিকেট। সেই সার্টিফিকেট ও মূল্যবান জিনিসপত্রসহ সবকিছু সিটি করপোরেশনের গাড়িতে তুলে দিয়েছে বাড়িওয়ালা যা কোন ভাবেই গ্রহনযোগ্য নয়। মহামারি করোনাকালিন সময়ে ২ মাসের মেস ভাড়া বাকি থাকাতে এমন পাশবিক কাজ করেছেন রুবী ভবনের মালিক মুজিবুল হক। আমরা ঢাকা কলেজের সাধারণ শিক্ষার্থীরা রুবী ভবনের মালিক মুজিবুল হকের দৃষ্টান্ত মূলক শান্তি চাই।’

দীর্ঘ চারবছর ধরে রাজধানীর কলাবাগান এলাকার ৪/এ, ওয়েস্টার্ন স্ট্রিটের রুবী ভবনের নিচতলায় থাকতেন ঢাকা কলেজের স্নাতক শেষবর্ষের শিক্ষার্থী মোহাম্মাদ সজীবসহ  উচ্চমাধ্যমিকের চার পরীক্ষার্থীসহ  ১৩০ জন ভাড়া থাকতেন। প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের সঙ্গে এই শিক্ষার্থীদের হারিয়ে গেছে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহনের মূল রেজিস্ট্রেশন কার্ড। এখন পরীক্ষায় অংশ নেয়া নিয়ে চরম দুশ্চিন্তায় রয়েছেন তারা।

আরও পড়ুন:

করোনা চিকিৎসায় ভেন্টিলেটর দরকার নেই: সংসদে স্বাস্থ্যমন্ত্রী

মায়ের করোনা পরীক্ষা তো হলোই না, উল্টো মার খেলেন ছেলে

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।