যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন

ট্রাম্প ভারতের পক্ষে থাকবেন এমন গ্যারান্টি নেই: বোল্টন

আমেরিকা ভারত লিড নিউজ

চীনের সঙ্গে যুদ্ধ পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ভারতের পক্ষে থাকবেন এমন কোনো গ্যারান্টি নেই। এমন বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন। খবর দ্য নিউ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের।

চীন ও ভারতের কয়েক দশকের পুরনো দ্বন্দ্ব ট্রাম্পের জানাশোনা নিয়েও সংশয় প্রকাশ করেছেন বোল্টন। বলেছেন, সীমান্ত নিয়ে দুই পক্ষের ঐতিহাসিক সংঘর্ষ নিয়ে ট্রাম্পের সঠিক ধারণা আছে বলেও মনে হয় না তার। লাদাখ সীমান্তে নয়াদিল্লি ও বেইজিংয়ের নজিরবিহীন উত্তেজনার মধ্যে শুক্রবার এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন ট্রাম্পের সাবেক এই উপদেষ্টা।

লাদাখ সীমান্তের গালওয়ান উপত্যকায় গত দুই মাস ধরে ভারত ও চীনের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। গত মাসের মাঝামাঝি (১৫ জুন) উভয় পক্ষের সেনাবাহিনীর মধ্যে ভয়াবহ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

সংঘাতের পরপরই (২০ জুন) এর মীমাংসার প্রস্তাব দেন ট্রাম্প। এ কথা তিনি নিজেই জানান তিনি। এ ব্যাপারে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে টেলিফোনেও কথা বলেছেন। বিষয়টি নিয়ে তিনি বলেন, ‌‘আমরা ভারতের সঙ্গে কথা বলছি, চীনের সঙ্গে কথা বলছি। বড় সমস্যা রয়েছে ওদের মধ্যে’।

চীনকে রুখতে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর সঙ্গে কূটনৈতিক মিশন শুরু করেছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও। প্রয়োজনে এশিয়ায পাঠানোর ঘোষণাও দিয়ে রেখেছে হোয়াইট হাউস।

চীনকে সামনে রেখে ভারতের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের এই দহরম-মহরম সম্পর্কের মধ্যেই শুক্রবার এক মার্কিন সংবাদমাধ্যমকে দেয়া সাক্ষাৎকারে বোল্টন বিস্ফোরক সব মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, ‘ভারতের পক্ষ নিয়ে ট্রাম্প কতদিন চীনের বিরোধিতা করবেন আমি জানি না। মনে হয় না, উনি নিজেও তা জানেন।‘

‌‘উনি শুধু বাণিজ্যিক স্বার্থেই চীনের সঙ্গে সম্পর্কের কথা জানেন। নভেম্বর মাসে ভোট শেষে যদি ক্ষমতায় আসেন, উনি চীনের সঙ্গে ফের বড় বাণিজ্যিক চুক্তি করবেন। এর মধ্যে ভারতের সঙ্গে চীনের উত্তেজনা আরও বাড়লে উনি যে ভারতের সঙ্গেই থাকবেন তা জোর দিয়ে বলা যায় না’।

বোল্টন আরও বলেন, ‌ট্রাম্প ভারত ও চীনের সম্পর্কের ইতিহাস নিয়ে কিছুই জানেন না। যদি কেউ তাকে এ ব্যাপারে বলেও থাকে, তাহলেও সেটা ট্রাম্পের মাথায় থাকার কথা না। তিনি আরও বলেন, আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে এই মুহূর্তে ট্রাম্প নির্বাচনী লড়াইটা বেশ কঠিন করে ফেলেছেন। সেটা আরও কঠিন হোক, এমন কোনো কিছুই তিনি অন্তত আগামী চার মাসে চাইবেন না। তাই এই মুহূর্তে চীনের বিরোধিতা করে ভারতের পক্ষে থাকার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন’।    

আরও পড়ুন

সোলেমানির চিন্তাধারা বেশি ভয় পায় যুক্তরাষ্ট্র: ইরান

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *