মার্কিন রণতরীর আগুন নেভাতে পারছে না ৪০০ কর্মীও

আমেরিকা

মার্কিন রণতরীর আগুন নেভাতে পারছে না ফায়ার সার্ভিসের ৪০০ কর্মীও। যুক্তরাষ্ট্রের বিমানবাহী রণতরী ইউএসএস বনোহোম রিচার্ডে তৃতীয় দিনের মতো আগুন জ্বলছে। ফায়ার সার্ভিসের ৪০০’র বেশি কর্মী আগুন নেভানোর চেষ্টা করেও এখন পর্যন্ত সফল হতে পারেনি। আগুন নেভাতে হেলিকপ্টারের সাহায্যে পানি ঢালা হচ্ছে। তবুও কিছুতেই নিভছে না।খবর ইউএস নিউজের।

মেরামতের জন্য শিপইয়ার্ডে অবস্থান করার সময় যুক্তরাষ্ট্রের দ্বিতীয় বৃহত্তম এই রণতরীতে আগুন লাগে। মেরামত শেষে রণতরীটির এফ-৩৫ জঙ্গিবিমান নিয়ে দক্ষিণ চীন সাগরে যাওয়ার কথা ছিল।

আরও পড়ুন-

বিদেশি শিক্ষার্থীদের দেশ ত্যাগের সিদ্ধান্ত বাতিল করল ট্রাম্প প্রশাসন

রবিবার সান ডিয়াগো শিপইোর্ডে মার্কিন বাহিনীর দ্বিতীয় বৃহত্তম বিমানবাহী রণতরী ইউএসএস বনোহোম রিচার্ডে বিস্ফোরণের পর আগুন ধরে যায়। আগুন ধরার পর অন্তত ৬৩ জন আহত হয়েছে।

রিয়ার অ্যাডমিরাল ফিলিপ সোবেক জানিয়েছেন, আহত ৬৩ জনের চোট সামান্যই। দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়ায় এক নৌঘাঁটিতে নোঙর করা ছিল মার্কিন নৌবাহিনীর ওই যুদ্ধ জাহাজ। দুর্ঘটনাবশত ওই রণতরিতে আগুন লাগে। ক্রমে তা বিধ্বংসী আকার নেয়।

রিয়ার এডমিরাল ফিলিপ সোবেক জানিয়েছেন, সান ডিয়াগো শিপইয়ার্ডে রক্ষণাবেক্ষণ কাজের জন্য রাখা একটি ছোট জাহাজে বিস্ফোরণ ঘটে। সেখান থেকে আগুন ছড়িয়ে পড়ে ইউএসএস বনোহোম রিচার্ডে। আগুন দ্রুতগতিতে জাহাজের টাওয়ারসহ বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। মার্কিন নৌবাহিনীর কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আগুন নেভানোর জন্য হেলিকপ্টার থেকেও পানি ছিটানো হচ্ছে।

ইউএসএস বোনোহোম রিচার্ডে নৌবাহিনীর এক হাজার সদস্য থাকার কথা। কিন্তু মেরামতের জন্য শিপইয়ার্ডে অবস্থান করায় জাহাজটিতে মাত্র ১৬০ জন ক্রু ছিলেন। মার্কিন নৌবাহিনীর কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, জাহাজে আগুন লাগার পর গুরুত্বপূর্ণ অস্ত্র ও গোলাবারুদ নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন-

ট্রাম্পের বেপরোয়ার কারনে লাগামহীন দেশও

যুক্তরাজ্যে নিষিদ্ধ হল হুয়াওয়ের পন্য ও ফাইভ-জি নেটওয়ার্ক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *